• প্রচ্ছদ » জাতীয় » দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিলে বাধা দেয়ার অভিযোগ সর্বনাশা খেলায় মেতেছে ভোটারবিহীন সরকার : রিজভী


দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিলে বাধা দেয়ার অভিযোগ সর্বনাশা খেলায় মেতেছে ভোটারবিহীন সরকার : রিজভী

জয়যাত্রা ডট কম : 11/10/2017

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে দেশব্যাপী বিএনপির পূর্বঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী ও ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া হামলা, গুলি ও লাঠিচার্জ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি আজ বুধবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ভোটারবিহীন সরকার অবৈধ ক্ষমতার শেষপ্রান্তে এসে এখন দিশেহারা। চারদিকে বিদায়ের বাঁশি বাজতে শুরু করেছে। তাই দ্বিগবিদিক জ্ঞানশুন্য হয়ে শেখ হাসিনার সরকার আরো বেশি উন্মত্ত হয়ে ওঠেছে। বিএনপিসহ বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার শুরু করেছে। মিডিয়া ট্রায়ালের এক সর্বনাশা খেলায় মেতেছে ভোটারবিহীন সরকার। মিডিয়ার দায়িত্ব সত্য তুলে ধরা। বস্তুনিষ্ঠ তথ্যের মাধ্যমে কারো বিরুদ্ধে দুর্নীতিও জনসন্মুখে তুলে ধরতে পারে, কিন্তু অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার আগেই কারো বিরুদ্ধে মিডিয়া ‘হাইপার প্রপাগান্ডা’ চালাতে পারে না। এখন প্রধান বিচারপতির ওপর যা করা হচ্ছে তা সরকারের আক্রোশ। রায়ে কিছু পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে যাওয়ায় প্রধান বিচারপতির ওপর চলছে এখন রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের প্রবল ঝাপটা।

রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

এসময় বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-দফতর সম্পাদক মো: মুনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে রুহুল কবির রিজভী বলেন, গত দু’দিনে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, গাইবান্ধা, বরিশাল, কিশোরগঞ্জ, কেরানীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিক্ষোভ মিছিলে নির্বিচারে হামলা ও গুলিবর্ষণ করে। কোনো কোনো স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে হামলায় অংশ নেয় ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীরাও। তারা বিভিন্ন জেলায় বিএনপির দলীয় কার্যালয় এমনকি নেতাকর্মীদের বাড়িঘর ঘেরাও করে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। বিনা কারণে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিল থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়াও দেশব্যাপী বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার শুরু করেছে পুলিশ। প্রতিদিনই বিভিন্ন জেলায় নেতা-কর্মীদেরকে বিরামহীনভাবে গণগ্রেফতার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, মানুষের সব অধিকার কেড়ে নিয়ে এখন সর্বোচ্চ আদালতকে কব্জায় নিতে সরকারি এজেন্সির লোকেরা যে সন্ত্রাসী তাণ্ডব চালিয়েছে, তা দেখে দেশবাসী শুধু হতবাক নয় রীতিমত শঙ্কিত। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে হত্যা করে ক্ষমতাসীনদের ক্ষমতাক্ষুধা সর্বগ্রাসীরুপ নিয়ে গোটা রাষ্ট্রব্যবস্থাকে গিলে খেতে উদ্যত হয়েছে। মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল বিচার বিভাগের ওপর ক্ষমতাসীনদের থাবা বিস্তার লাভ করেছে। সর্বোচ্চ আদালত আজ নজিরবিহীন সন্ত্রাসে ক্ষতবিক্ষত। সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতিও আজ অনিরাপদ। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের পর ক্ষমতাসীনরা প্রধান বিচারপতিকে অসুস্থ গালিগালাজ ও হুমকি প্রদর্শন করেছে। তারা প্রধান বিচারপতিকে আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে। তাদের মন্ত্রীরা প্রধান বিচারপতিকে তুই তোকারি করে বলেছে তাকে শুধু চাকরি ছাড়লে হবে না দেশও ছাড়তে হবে। আওয়ামী সরকারের কাছে সর্বোচ্চ আদালতে মর্যাদার কোনো মূল্য নেই। প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার আগেই তার বিরুদ্ধে অশোভন সমালোচনা ও মিডিয়া ট্রায়ালের এক সর্বনাশা খেলায় মেতেছে ভোটারবিহীন সরকার।

রিজভী বলেন, রাষ্ট্র সমাজের আবহাওয়া এখন বৈরীতায় বিষাক্ত। কিন্তু তাদের সব অপকর্ম তারা লুকাতে পারছে না। উন্মোচিত হচ্ছে তাদের কুৎসিত কর্মকাণ্ড। এই কুপথগামী সরকারের অবলম্বন শুধুমাত্র নির্লজ্জ মিথ্যাচার আর হিংসাশ্রয়ী আচরণ। সত্য ঘটনাকে মিথ্যা বলা আর মিথ্যাকে সত্য বলা আওয়ামী লীগের আদর্শিক মেনিফেস্টো। জনগণ মনে করে আওয়ামী লীগ বিশ্বাস ভঙ্গকারী একটি দল। তাই তাদের সব অনাচারের বিরুদ্ধে সাহসী জনগণের প্রতিবাদ ও প্রতিরোধে এগিয়ে আসা ঢলের বিষয়ে তারা উৎকণ্ঠিত। এ কারণে সরকার আরো হিংস্র হয়ে উঠেছে। তাই তারা বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোকে নিশ্চিহ্ন করতে মিথ্যা মামলা, কারাগারে আটক, গুম-অপহরণের সহিংসতার ছোবলে দেশের জনগণকে ক্ষতবিক্ষত করছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। এটি বিএনপিসহ প্রতিবাদী বিরোধী দলগুলোর অন্তহীণ প্রতিবাদী মিছিলকে আটকাতে সরকারের এক ব্যর্থ প্রচেষ্টা। সরকারের বিভিন্ন বাহিনীর নিষ্ঠুর বলপ্রয়োগ প্রতিহত করে বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর জোরালো তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় প্রমানিত হয়েছে যে, সরকারের যেকোন হিংস্র আক্রমণ মোকাবিলা করতে জাতীয়তাবাদী শক্তি সদা প্রস্তুত।

দেশব্যাপী বিএনপি ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক গত তিন দিন ধরে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে প্রতিবাদ মিছিলে ন্যাক্কারজনক হামলা, গুলিবর্ষণ ও নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া হীন উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা প্রত্যাহার ও তাদের নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি করেন রিজভী।

একইসাথে পুলিশের বেপরোয়া গুলি ও লাঠিচার্জে আহত নেতাকর্মীদের আশু সুস্থতা কামনা এবং বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান। এসময় দেশব্যাপী পুলিশী হামলা ও গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের একটি সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরেন রুহুল কবির রিজভী।




সর্বশেষ সংবাদ

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মো. হাফিজউদ্দিন
সম্পাদক - শরিফা নাজনীন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019