আকাশ সংস্কৃতিতে গা ভাসিয়ে দিলে চলবে না : রাষ্ট্রপতি

জয়যাত্রা ডট কম : 03/10/2018


আন্তর্জাতিক লোক সংস্কৃতি উৎসবে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেছেন, ‘তথ্যের অবাধ প্রবাহের ফলে বিশ্ব একটি গ্রামে পরিণত হয়েছে। এতে করে আকাশ সংস্কৃতি আমাদের জন্য বাস্তবতা। বিভিন্ন জাতির সংস্কৃতিক প্রভাব পড়েছে। একই সাথে পাল্টে যাচ্ছে সংস্কৃতির ধারণাও। আকাশ সংস্কৃতিতে গা ভাসিয়ে দিলে চলবে না। এর ভালো দিকগুলো গ্রহণ ও খারাপ দিকগুলো বর্জন করতে হবে।’

আজ বুধবার বিকেলে নেত্রকোনা শহরের মোক্তারপাড়া খেলার মাঠে আন্তর্জাতিক লোক সংস্কৃতিক উৎসব উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বৃহত্তম ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের উদ্যোগে আয়োজিত আন্তর্জাতিক লোক সংস্কৃতি উৎসব- ২০১৮ দেশ বিদেশের লোক গবেষক ও শিল্পীদের মাঝে সম্প্রীতির বন্ধনকে আরও দৃঢ় করবে এবং এ অঞ্চলের ইতিহাস ঐতিহ্য ও জীবন মানোন্নয়নে সুদূর প্রসারি ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।’ আবদুল হামিদ বলেন, ‘সংস্কৃতি হচ্ছে জীবনের দর্পন। সংস্কৃতিই ব্যক্তি, জাতি ও দেশের প্রকৃত পরিচয় বহন করে। একদিনে বা হঠাৎ করে সংস্কৃতি গড়ে উঠে না। দিনে দিনে মানুষের ধর্মীয় ও সামাজিক বিশ্বাস ও আচার আচরণ, জীবনমান চিত্তবিনোদনের উপায় ইত্যাদির ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠে সংস্কৃতি।’

আবুল ফজলকে উদ্বৃত করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘সংস্কৃতিক কারো পৈত্রিক সম্পত্তি নয়, সংস্কৃতি নিয়ে কেউ জন্মায় না এবং কেউ তা পেতে পারে না উত্তরাধিকার সূত্রে। প্রতিদিন সচেতনা সাধনার দ্বারা সংস্কৃতিকে বহন করতে হয়। তাই আমরা যা ভাবি, পছন্দ করি- সেটাই সংস্কৃতিক। আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য বহু পুরোনো ও সমৃদ্ধশালী।’

সংস্কৃতি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘যতদিন বাংলার আকাশ থাকবে, যতদিন বাংলার বাতাস থাকবে, ততদিন বাংলার সংস্কৃতি থাকবে।’

এর আগে শহরের আরামবাগ এলাকায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। রাষ্ট্রপতি মঞ্চে এসে পৌঁছার পর তাকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ আলী খান খসরু, নেত্রকোনা পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম খান ক্রেস্ট উপহার দেন। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনা করেন, বৃহত্তর ময়মনসিংহ ও ভারতের শিল্পীরা।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী ও বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের সভাপতি মোস্তফা জব্বারের সভাপতিত্বে আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে ‘মৈমনসিংহ গীতিকা’ প্রতিপাদ্যে ওই উৎসবে বক্তব্য দেন— যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, ভারতের বিশ্ব ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর সবুজ কলি সেন, দিনেশ চন্দ্র সেনের প্রপোত্রী দেব কন্যা সেন, অধ্যাপক যতীন সরকার প্রমুখ। অনলাইন




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019