ইউএনও’র উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা পাওয়া বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু

জয়যাত্রা ডট কম : 10/01/2019

মনির হোসেন, বরিশাল ॥ “একজন শিক্ষার্থীও যেন ঝড়ে না পরে” প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ মূলমন্ত্রকে ধারন করে অবশেষে শিক্ষার আলোয় সর্বত্র আলোকিত করার প্রত্যয়ে এগিয়ে আসলেন বরিশালের উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুমা আক্তার।

তার মহতি উদ্যোগের কারণে একদিনের মধ্যেই প্রতিষ্ঠা লাভের পর আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে “শেখ রাসেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়” নামের সম্পূর্ণ একটি নতুন বিদ্যালয়ের। পৌরবাসী পেয়েছে একটি নতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয়। ফলে বছরের শুরুতেই ঝড়ে পড়ার হাত থেকে রেহাই পেয়েছে তিন শতাধিক শিক্ষার্থী।

শিক্ষানুরাগী ইউএনও’র এ মহতি উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে এগিয়ে এসেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা। ইতোমধ্যে স্কুলের নামে পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রিপন মোল্লাসহ তার পরিবারের সদস্যরা জমিদান করায় ভবন নির্মানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই বিদ্যালয়টিতে ভর্তি ও পাঠদান শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুমা আক্তার।

সূত্রমতে, উজিরপুর পৌর সদরের ডব্লিউবি মডেল ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশন বিদ্যালয়টি সরকারী হওয়ায় একদিকে যেমন শিক্ষার গুনগত মান উন্নত হচ্ছে, অপরদিকে সংকট ও ভোগান্তিতে পরেছে কয়েক শতাধিক স্বল্প মেধাবী ছাত্র-ছাত্রী। এসব শিক্ষার্থীরা ওই বিদ্যালয়টিতে ভর্তি ইচ্ছুক হলেও মেধা তালিকায় না থাকার কারনে ভর্তি হতে পারেনি। পৌর সদরে ছাত্রীদের জন্য বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থাকলেও ছাত্রদের জন্য কাছাকাছি অন্যকোন বিদ্যালয় নেই। ফলে চরম হতাশাগ্রস্থ হয়ে গত কয়েকদিন থেকে বিদ্যালয়টিতে ভর্তি হতে না পেরে কয়েকশ’ শিক্ষার্থী বিক্ষুব্ধ হয়ে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেয়।

উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুমা আক্তার বলেন, শিক্ষার জন্য ছাত্র-ছাত্রীদের এমন আগ্রহ দেখে আমি মুগ্ধ হয়ে পৌর এলাকায় একটি নতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের আগ্রহ প্রকাশ করে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে গত (৭ জানুয়ারী) সকাল ১০টায় জরুরী সভায় বসেছিলাম। ওই সভায় সর্বসম্মতিক্রমে পৌর এলাকায় নতুন একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

পৌর মেয়র মোঃ গিয়াস উদ্দিন বেপারী বলেন, নতুন এ বিদ্যালয়টির নাম ইউএনও নিজেই প্রস্তাব করেছেন “শেখ রাসেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়”। সভায় উপস্থিত সবাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুমা আক্তারের প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে তাকেই (ইউএনও) নতুন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠণ করা হয়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সহিদুল হক বলেন, নতুন বিদ্যালয়টি স্থাপনের জন্য জমিদাতা হিসেবে আগ্রহ প্রকাশ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত আঃ রশিদ মোল্লার সন্তান আহমেদুল কবির বিপ্লব মোল্লা, রফিকুল ইসলাম ও পৌর কাউন্সিলর রিপন মোল্লা। শেখ রাসেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্থায়ী ভবন নির্মানের জন্য জমিদানকে স্বাগত জানিয়ে ইউএনওসহ জরুরি সভায় উপস্থিত নেতৃবৃন্দরা তাৎক্ষনিক পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের হানুয়া মহল্লার স্থান পরিদর্শন করেন।

তারই ধারাবাহিকতায় গত ৮ জানুয়ারী আনুষ্ঠানিকভাবে শেখ রাসেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নামে ৫০ শতক জমি দানপত্র দলিলের মাধ্যমে বুঝিয়ে দিয়েছেন পৌর কাউন্সিলর রিপন মোল্লা ও তার দুই সহদর।

হানুয়া মহল্লার আবুল বাশার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশ্ববর্তী দানকৃত জমিতে দ্রুত শেখ রাসেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা জানিয়ে ইউএনও মাসুমা আক্তার বলেন, অস্থায়ীভাবে শিক্ষার্থীদের স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর রিপন মোল্লার বাসভবনের নীচ তলায় পাঠদান করানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

ইউএনও আরও বলেন, পৌর সদরে এ বিদ্যালয়টি স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা না হলে শত শত শিক্ষার্থীদের প্রায় চার কিলোমিটার দূরত্বের বিদ্যালয়ে যেতে হতো। পায়ে হেঁটে দূরত্বের স্কুলে গিয়ে পড়াশুনা করতে অনেক শিক্ষার্থীরা অনিহা প্রকাশ করায় শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পরার আশংকা দেখা দিয়েছিলো। তার (মাসুমা আক্তার) মতে, পৌর এলাকার সুবিধাবঞ্চিত ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষিত হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে শেখ রাসেল মাধমিক বিদ্যালয়টি গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে। নতুন বিদ্যালয়ের নামকরনের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, শেখ রাসেল কে? তা নতুন প্রজন্মের অনেক শিক্ষার্থীরাই জানেনা।

তাই স্কুলের নামকরণ কার নামে করা হয়েছে, সে কে? সেসব বিষয়েও নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ইতিবাচক মনোভাবের সৃষ্টি হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019