চা-বিরতির আগেই অলআউট বাংলাদেশ

জয়যাত্রা ডট কম : 10/03/2019

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ওয়েলিংটন টেস্টের প্রথম দুই দিন। টসও হয়নি বৃষ্টির দাপটে। আজ তৃতীয় দিনে সূর্য উঁকি দিয়েছে। তাইতো ২২ গজের সবুজ গালিচায় মাঠে নামতে পেরেছে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড।

টস বেশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিল সিরিজের দ্বিতীয় এই টেস্টে। স্বাগতিক দলের অধিনায়ক উইলিয়ামসনের পাশে এসে দাঁড়ায় ভাগ্য। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। সকালের সূর্যের তেজদ্বীপ্ত আলোর সঙ্গে বাংলাদেশের দুই ওপেনারের ব্যাটও জ্বলে ওঠে। তবে প্রথম সেশনেই যা লড়াই করার করেছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় সেশনে অসহায় আত্মসম্পর্ণ করে ২১১ রানে অলআউট বাংলাদেশ।

বেসিন রিজার্ভে প্রথম দেড় ঘন্টা স্বাগতিক বোলারদের দারুণভাবে সামলে শুরুর ‘ভয়’ দূর করেন তামিম ইকবাল ও সাদমান ইসলাম। পানি পানের বিরতির আগে ২০ ওভারে বাংলাদেশের রান বিনা উইকেটে ৭৪। উইকেটের চারপাশে রান তুলে দুই ব্যাটসম্যান থিতু হয়ে যান সহজেই। তামিম ছিলেন খানিকটা আগ্রাসী। অন্যদিকে বুঝেশুনে ধীরস্থির হয়ে এগোতে থাকেন সাদমান।

২১তম ওভারে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম ভাঙেন দুই ব্যাটসম্যানের প্রতিরোধ। অফ স্টাম্পের পাশ ঘেঁষে বেরিয়ে যাওয়া বল সাদমানের ব্যাটে ছোঁয়া পেয়ে যায় স্লিপে রস টেলরের হাতে। ২৭ রানে ফেরেন সাদমান। সঙ্গী হারানোর পর তামিম তুলে নেন ফিফটি।

৭৫ রানে প্রথম উইকেট হারানোর পর পরের ৭৩ রান যোগ করতে বাংলাদেশ হারায় আরো ৫ উইকেট। তামিম বাদে প্রত্যেকেই ভুগেছেন শর্ট বলে। নড়বড়ে শুরুর পর উইকেট বিলিয়ে এসেছেন সহজে। মুমিনুল হককে ফিরিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে আক্রমণ শুরু করেন নেইল ওয়াগনার।

বাঁহাতি পেসারের শর্ট বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ১৫ রান করা মুমিনুল। মধ্যাহ্ন বিরতির সময় বাড়ানোয় ব্যাটিংয়ে আসেন মিথুন। কিন্তু তার আউটেই বিরতিতে যায় দুই দল। ওয়াগনারের শর্ট বল তুলে মারতে গিয়ে টপ-এজ হয়ে ৩ রানে সাজঘরে ফিরেন মিথুন।

১২৭ রানে ৩ উইকেট নিয়ে বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। বিরতির পর বাংলাদেশ শিবিরে সবচেয়ে বড় ধাক্কাটি দেন ওয়াগনার। ৭৪ রান করা তামিম ওয়াগনারের বল পুল করতে গিয়ে ডিপ স্কয়ার লেগে ক্যাচ তোলেন। ১১৪ বলে ১০ চারে তামিম সাজান ৭৪ রানের ইনিংসটি। ক্রিজে এসে দুই চার ও এক ছক্কায় ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন আগের ম্যাচে অভিষেক টেস্ট সেঞ্চুরি পাওয়া সৌম্য। কিন্তু এবার দৃঢ়তা দেখাতে পারেননি। ম্যাট হেনরির বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ২০ রানে।

টিকতে পারেননি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। ওয়াগনারের শর্ট বল তুলে মারতে গিয়ে স্কয়ার লেগে ক্যাচ দেন ১৩ রানে। ১৬৮ রানে ৬ উইকেট নেই বাংলাদেশের। বড় স্কোরের স্বপ্ন সেখানেই শেষ হয়। ২৮ রানে ৪ উইকেট নিয়ে মিডল অর্ডার ভেঙে দেন ওয়াগনার। আর ‘লেজটা’ কাটেন ট্রেন্ট বোল্ট। শেষ দিকে ৩৮ রানে ৩ উইকেট নেন বাঁহাতি পেসার।

লিটন শেষ দিকে ৪৯ বলে ৩৩ রানের ইনিংস খেললে বাংলাদেশের রান দুইশ অতিক্রম করে। দলে ফেরা তাইজুল ইসলাম ও মুস্তাফিজুর রহমান দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি। আবু জায়েদের ব্যাটও হাসেনি। বৃষ্টিতে প্রথম দুদিন নষ্ট হওয়ায় প্রত্যেক সেশনে আধা ঘন্টা করে সময় বাড়ান আম্পায়াররা। বাংলাদেশের ইনিংস চা-বিরতি পর্যন্ত টেকেনি। বাংলাদেশ অলআউট হওয়ায় বাধ্য হয়েই চা-বিরতি ডাকেন ম্যাচ অফিসিয়ালরা।

বাংলাদেশকে অলআউট করতে ৬১ ওভার বোলিং করতে হয়েছে নিউজিল্যান্ডকে। আজ আরো ৩৭ ওভার খেলার সুযোগ পাবে দুই দল।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019