মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবে না : হাইকোর্ট

জয়যাত্রা ডট কম : 15/05/2019


নিজস্ব প্রতিবেদক:
মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবে না , মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক অনুজীব সহ দুধ দই উৎপাদনকারীদের শাস্তি হতে হবে। সাধারণ মানুষকেও সচেতন করতে হবে। রিপোর্টের বিষয় ওয়েব সাইটেও দিতে হবে বলেছেন উচ্চ আদালত।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ শুনানিকালে এ মন্তব্য করেন।

আদালত দুধ – দইয়ে অনুজীব, কীটনাশক ও সীসার বিষয়ে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও বিএসটিআই আদালতে উল্লেখিত দুধ ও দইয়ের প্রস্তুতিকারী প্রতিষ্ঠানের নাম প্রদানসহ প্রতিবেদন প্রকাশ করতে বলেছেন।

বুধবার (১৫ মে) বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম ও বিএসটিআই এর আইনজীবী ব্যারিস্টার সরকার এম আর হাসান ( মামুন) বিস্তারিতভাবে নামসহ প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সময় প্রার্থনা করেন।

দুদকের আইনজীবী সৈয়দ মামুন মাহবুব ওকালতনামা সহ এপিয়ার হয়ে আদালতকে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও বিএসটিআই জড়িত কোম্পানির নাম না দেওয়ায় দুদক কাজ শুরু করতে পারছে না বলে আদালতকে জানান । আদালত দেখেন গত ১১ ফেব্রুয়ারি আদেশে ন্যাশানাল ফুড সেফটি ল্যাবরেটরীর প্রধান প্রফেসর শাহনিলা ফেরদৌসীকে নোটিশ জারীর ১৫ দিনের মধ্যে তাঁর গবেষণালব্দ রিপোর্টটি আদালতে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন নি।

আদালত প্রফেসর শাহনিলা ফেরদৌসীকে আগামী ২১ মে সকাল সাড়ে ১০ টায় আদালতে শরীরে উপস্থিত হয়ে তাঁর রিপোর্টটি আদালতে জমা দিতে আদেশ দেন। আর নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও বিএসটিআইকে ক্ষতিকারক দুধ ও দইয়ের প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের নামসহ তাদের গৃহীত কার্যক্রম সম্পর্কে বিস্তারিত প্রতিবেদন আগামী ২৩ জুন আদালতে দাখিল করতে আদেশ দিয়েছেন ।

বিজ্ঞ আদালত ১১ ফেব্রুয়ারি সোমবার দৈনিক প্রথম আলো, The daily Star ও দৈনিক কালের কন্ঠে দুধ-দইয়ে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়ার অনুজীব,কীটনাশক, সিসা, Lead, pesticides in milk, গরুর দুধে ও বিষের ভয়, শিরোনামে রিপোর্টের ভিত্তিতে স্বপ্রণোদিত হয়ে রুল দিয়েছিলেন এবং তিন মাসের মধ্যে কমিটি গঠন করে ব্যবস্থ নিতে আদেশ দিয়েছিলেন।

গত ৮ মে কোর্টে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ আদালতকে জানান তারা ১৬ সদস্যের কমিটি গঠন করে কার্যক্রম শুরু করেছেন। কোর্ট কারা এর সাথে জড়িত কারা তাদেরকে চিহ্নিত করে রিপোর্ট দিতে বলেছিলেন এবং আগামী ১৫ মে পরবর্তী শুনানির জন্য ধার্য করেছেন।

আজ ফুড সেফটি অথোরিটির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম। বিএসটিআইয়ের পক্ষে আইনজীবী সরকার এম আর হাসান ( মামুন),দুদকের পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ মামুন মাহবুব। রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না।
উপরোক্ত বিষয়টি অবগত হয়ে ১১ ফেব্রুয়ারি আদালত দুধ ও দইয়ের উৎপাদনকারী কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কেন সর্বোচ্চ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না সেই মর্মে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে স্ব প্রণোদিত হয়ে রুল করে কারণ জানতে চান।

এই মর্মে চার সপ্তাহের রুল জারী করেন এবং ১৫ দিনের মধ্যে এই বিষয়ে কি ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হলো তার অগ্রগতি প্রতিবেদন জানতে আদেশ দেন। রুলের বিষয়ে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, খাদ্য সচিব, স্বরাষ্ট সচিব, স্বাস্থ্য সচিব, মৎস্য ও প্রাণী সচিব ও কৃষি সচিব চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিবেন। একই সময়ে দুদকের চেয়ারম্যান এই বিষয়ে কি ধরণের ব্যবস্থা নিচ্ছেন তাও জানানোর আদেশ হয়।

উল্লেখ্য ন্যাশনাল ফুড সেফটি ল্যাবরেটরি তাদের এক গবেষণা তথ্য অনুযায়ী গরুর দুধে অ্যান্টিবায়োটিক, দইয়ে ক্ষতিকর সিসা ও গোখাদ্যেও মাত্রারিক্ত কীটনাশকসহ নানা ধরনের ক্ষতিকর রাসায়নিক পাওয়া গেছে বলে জানান।
এই বিষয়গুলো মানবদেহের দেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক, মানুষের কিডনি, যকৃতসহ নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে, এই কারণেই আদালত স্বপ্রণোধিত হয়ে জনস্বার্থে এই রুল জারী করেছিলেন । # একে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019