• প্রচ্ছদ » আইন-আদালত » আ.লীগ দলীয় সাবেক এমপি লিটন হত্যা অস্ত্র মামলায় জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি কাদের খানের যাবজ্জীবন কারাদন্ড


আ.লীগ দলীয় সাবেক এমপি লিটন হত্যা অস্ত্র মামলায় জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি কাদের খানের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

জয়যাত্রা ডট কম : 11/06/2019

মো.নজরুল ইসলাম,গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যার ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা অস্ত্র মামলার রায়ে ওই আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি আব্দুল কাদের খানকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

সকাল ১১ টা ৫০ মি. থেকে দুপুর সাড়ে বারোটা পর্যন্ত ৪৩ পৃষ্ঠার রায় পড়ে শোনান বিচারক। ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর দুর্বৃত্তদের গুলিতে সুন্দরগঞ্জে শাহাবাজ গ্রামে নিজ বাড়িতে নিহত হন এমপি লিটন। পরে এই ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ২০১৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি কাদের খানকে বগুড়ার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তখন কাদের খানের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ২৩ ফেব্রুয়ারি নিজ গ্রামের বাড়ির উঠানের মাটির নিচ থেকে ৬ রাউন্ড গুলিসহ একটি পিস্তল উদ্ধার করে পুলিশ। হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় সুন্দরগঞ্জ থানায় ২৫ ফেব্রুয়ারি অস্ত্র আইনে মামলা করে পুলিশ। তদন্ত শেষে ৫এপ্রিল তদন্তকারী কর্মকর্তা কাদের খানকে আসামি করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।

রায়ে সন্তোষ প্রকাশ কওে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি (পিপি) শফিকুল ইসলাম শফিক জানান, গত ৩০ মে মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ, যুক্তিতর্ক, শুনানীসহ সব কার্যক্রম শেষে ১১ জুন রায়ের দিন ধার্য্য করা হয়। সেই মোতাবেক বিচারক গতকাল ১১ জুন রায় প্রদান করেন। যেখানে অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে কাদের খানকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। পিপি আরও জানান, লিটন হত্যায় তিনটি অস্ত্র ব্যবহার করা হয়। এর ভিতর একটি অস্ত্র কাদের খান থানায় জমা দিয়েছেন। অন্য আরেকটি অস্ত্র কাদের খানের ছাপরহাটি গ্রামের বাড়ির উঠোন খুঁরে ৬ রাউন্ড গুলিসহ উদ্ধার করে পুলিশ। কিন্তু কাদের খানের স্বীকারোক্তি অনুযায়ি তৃতীয় অস্ত্রটির সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এদিকে, রায়ের সময় আদালতে উপস্থিত নিহত এমপি লিটনের স্ত্রী খুরশিদ জাহান স্মৃতি রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, মূল মামলা- লিটন হত্যা মামলার বিচার কায দ্রুত সম্পন্ন করে আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি কামনা করি।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর দুর্বৃত্তদের গুলিতে সুন্দরগঞ্জের শাহাবাজ গ্রামে নিজ বাড়িতে নিহত হন এমপি লিটন। হত্যা ঘটনায় লিটনের বড় বোন ফাহমিদা কাকলী বাদি হয়ে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। হত্যা মামলার প্রধান আসামী কাদের খানসহ চারজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে আসামীরা আদালতে লিটন হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়। বর্তমানে আদালতে হত্যা মামলাটির স্বাক্ষ্যগ্রহণ চলছে। এছাড়া, হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত গুলিভর্তি পিস্তল উদ্ধারের ঘটনায় অস্ত্র আইনে আরও একটি মামলা দায়ের করেছিল পুলিশ।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019