• প্রচ্ছদ » অর্থনীতি » লালমনিরহাটে চালের বরাদ্দ পেয়েও গুদামে চাল দিতে পারছেন না মিল চাতাল মালিকরা


লালমনিরহাটে চালের বরাদ্দ পেয়েও গুদামে চাল দিতে পারছেন না মিল চাতাল মালিকরা

জয়যাত্রা ডট কম : 08/09/2019

জে আই সমাপ্ত, লালমনিরহাট:
চলতি বোরো মৌসুমে চালের বরাদ্দ পেয়েও সরকারি খাদ্য গুদামে চাল দিতে পারছেন না লালমনিরহাটের মিল চাতাল মালিকরা। অথচ যে সকল মিল চাতালের কোন অস্তিত্ব নেই তাদের নামে বরাদ্দ দেখিয়ে সরকারি খাদ্য গুদামে চাল সংগ্রহ করা হয়েছে।
খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,গত ৯ মে ২০১৯ ইং তারিখে লালমনিরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়শ্রী রাণী রায় ১৪৪ টি মিল চাতাল লালমনিরহাট সদর উপজেলায় সচল আছে এমন একটি তালিকায় স্বাক্ষর করেন। সে তালিকার কাগজে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আইয়ুব আলী ও উপজেলা রাইচ মিল মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক সেকেন্দার আলীর স্বাক্ষরও রয়েছে। এ তালিকার প্রেক্ষিতে মিল চাতাল মালিকরা সরকারি গুদামে চাল দেয়ার জন্য সরকারি নিয়ম অনুযায়ী চুক্তি করেন এবং চলতি বোরো মৌসুমে চালের বরাদ্দ পান।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, গত জুলাই মাসে মিল চাতাল গুলোর অনিয়মের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তৈরি করা হয় একটি তদন্ত কমিটি। তদন্তে মিলে ব্যাপক অনিয়ম। কিন্তু অনিয়মের সাথে জড়িত মিল চাতাল মালিক ও খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিসের কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারির বিরুদ্ধে নেয়া হয়নি আইনগত ব্যবস্থা। এমনকি অনিয়মের সাথে জড়িত চাতাল মালিকরা খাদ্য গুদামে চাল দেয়ার সুযোগ পেলেও নতুন সচল মিলগুলো সরকারি ভাবে বরাদ্দ পেয়ে খাদ্য গুদামে চাল দিতে পারছে না এমন অভিযোগ তুলেছেন একাধিক মিল চাতাল মালিকরা।
এ ব্যাপারে মেসার্স হাবিবা এন্টারপ্রাইজের মালিক হায়দার আলী জানান, সরকারি নিয়ম নীতি মেনে সরকারের সাথে চুক্তি করার পর বরাদ্দ পেয়েছি। অথচ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের সীমাহীন দুর্নীতির কারনে চাল দিতে পারছিনা।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019