দৃষ্টান্ত স্থাপন করল গাইবান্ধা পৌরসভা

জয়যাত্রা ডট কম : 25/11/2020


মো.নজরুল ইসলাম,গাইবান্ধা প্রতিনিধি:
কান্নাজড়িত কন্ঠে শাহনাজ পারভীন বলছিলেন,“ আল্লাহ যেন মেয়র সাহেবের ভালো করেন। আজকে আমার স্বামী নেই। কিন্তু তার চাকরির পাওনা টাকা একসাথে পেয়ে সংসারের অনেক উপকার হবে। স্বামীর মৃত্যুর পর ছেলেদের পড়াশোনা নিয়ে যখন হিমশিম খাচ্ছিলাম ঠিক সেই সময় এই অর্থ সংসারে স্বচ্ছলতায় কিছুটা হলেও উপকারে আসবে।” পাওনা টাকার চেক হাতে পেয়ে আবেগাপ্লুাত হয়ে কথাগুলো বলছিলেন গাইবান্ধা পৌরসভার প্রয়াত সহ-কর আদায়কারী শফিকুল ইসলাম-এর স্ত্রী। শফিকুল গত ২২ সেপ্টেম্বর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।

গত ২৩ নভেম্বর শফিকুলের আনুতোষিকের ১৮ লাখ ৮৬ হাজার ৪ শত টাকার চেক হস্তান্তর করেন গাইবান্ধা পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শাহ্ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর মিলন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নির্বাহী প্রকৌশলী এবিএম সিদ্দিকুর রহমান, সহকারী প্রকৌশলী রেজাউল হক, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা বিপুল কুমার সাহা, এসডিও রবিউল ইসলাম, জেলা পৌর সার্ভিস এসোসিয়েশনের সভাপতি নজরুল ইসলাম, সম্পাদক মিলন কুমার সরকার, পৌর কর্মচারি সংসদের সভাপতি অমিতভা চক্রবর্তী রিন্টু, সহ-সম্পাদক সূচনা সরকার প্রমূখ।

পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ নভেম্বর বিকালে অনানুষ্ঠানিকভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বল্প পরিসরে চেক প্রদানের আনুষ্ঠানিকতার আয়োজন করে গাইবান্ধা পৌরসভা। অনুষ্ঠানে গাইবান্ধার পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী এবিএম সিদ্দিকুর রহমান বলেন,“দেশের অধিকাংশ পৌরসভায় ছয় থেকে পনের মাস পর্যন্ত বেতন বকেয়া রয়েছে। সেখানে গাইবান্ধা পৌরসভা ব্যতিক্রম উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। এই পৌরসভায় কোনও বেতন বকেয়া নেই। এবং অবসরকালীন পাওনাও একসঙ্গে পরিশোধ করা হয়। এটি অন্যরকম দৃষ্টান্ত।”

পৌর মেয়র শাহ্ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর মিলন গতকাল বুধবার দুপুরে মুঠোফোনে বলেন, “আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করি নাগরিক সেবার পাশাপাশি পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারির বেতনভাতাসহ অবসরপ্রাপ্তদের পাওনা পরিশোধের। দেশের কোনও পৌরসভা এক যোগে আনুতোষিকের টাকা প্রদান করে বলে আমার জানা নেই। আমি চেষ্টা করি পৌর কর্মচারিদের বেতনভাতা থেকে শুরু করে যাবতীয় পাওনাদি সময় মতো পরিশোধ করার। এটি তারই একটি অংশ।”




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক - তোফাজ্জল হোসেন
Mob : 01712 522087
ই- মেইল : [email protected]
Address : 125, New Kakrail Road, Shantinagar Plaza (5th Floor - B), Dhaka 1000
Tel : 88 02 8331019