Posted on

বরগুনায় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সেবা সম্পর্কিত এডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত


এম আর অভি,বরগুনা প্রতিনিধি:

বরগুনায় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সেবা সম্পর্কিত অংশগ্রহণ মূলক জরিপের ফলাফল শেয়ার এবং এডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শহরের সদর উপজেলায় যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ সেবা সম্পর্কিত অংশগ্রহণ মূলক এডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত হয়।
বরগুনা সদর উপজেলার যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা বিভাষ কুমার দাস এর সাথে অংশগ্রহণ মূলক জরিপের ফলাফল শেয়ার করেতে ওয়াইডিই প্রকল্পের ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নরা (ভলেন্টিয়ার) এ এডভোকেসি সভা করেন।

পাশাপাশি তারা স্থানীয় সরকার প্রশাসনের ওয়েবসাইটের তথ্য হালনাগাত করা এবং জনসেবা সম্পর্কিত তথ্যগুলিতে কমিউনিটির জনসাধারণের কাছে সহজ লভ্য করতে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের লক্ষ্যে মূলত এ এডভোকেসি সভা করেছে।
এ এডভোকেসি সভায় উপস্থিত ছিলেন, একশন এইড বাংলাদেশের ওয়াইডিই প্রজেক্টের প্রোগ্রাম অফিসার সুভেন্দু বিশ্বাস, স্থানীয় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ডোক্যাপ এর নির্বাহী পরিচালক মো. মাসুদ আলম এবং ওয়াইডিই প্রকল্পের প্রজেক্ট অফিসার সাইফুল্লাহ মাহমুদসহ ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নরা (ভলেন্টিয়ার)।

এ সময় অংশগ্রহণ মূলক জরিপের ফলাফল এবং ফলাফলের ভিত্তিতে তৈরিকৃত সুপারিশ মালা সকলের সামনে উপস্থাপন করেন ইয়ুথ চ্যাম্পিয়ন মো.রুবেল । পরবর্তীতে উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা বিভাষ কুমার দাস তার মতামত তুলে ধরেন এ এডভোকেসি সভায়।

যুবউন্নয়ন অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, ঋণ বিতরণ এবং অন্যান্য কার্যক্রম সম্পর্কিত এই অংশগ্রহণ মূলক জরিপটি ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নদের স্বেচ্ছা শ্রমে পরিচালিত হয়েছে।
বরগুনা জেলার সদর উপজেলা ৪ টি ভিন্নভিন্ন ইউনিয়নের ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী যুবদের কাছ থেকে জরিপের তথ্য সংগ্রহ করা হয়।

জরিপের প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে যুবদের মধ্যে ৫৫ শতাংশ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ, ঋণ বিতরণ ও অন্যান্য কার্যক্রম সম্পর্কে জানেনা। আর বাকী ৪৪ শতাংশ যুব এই সকল কার্যক্রম গুলো সম্পর্কে জানে। যারা জানেন তাদের মধ্যে মাত্র ১৩ শতাংশ যুব কোননা কোন ট্রেডে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।
যারা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, ঋণ বিতরণ ও অন্যান্য কার্যক্রম সম্পর্কে জানে তাদের মধ্যে ৯০ শতাংশ যুব সরাসরি যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ওয়েব সাইট অথবা কার্যালয় থেকে জানতে পারেনি বরং অন্যান্য মাধ্যম থেকে জেনেছে।
জরিপের প্রাপ্ত তথ্য থেকে দেখা যায় যে, জরিপে অংশ গ্রহণ কারী যুবদের মধ্যে যারা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছে তাদের মধ্যে মাত্র ২৮ শতাংশ যুব প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ নিয়েছে অন্যরা অপ্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ নিয়েছে এবং মাত্র ১ শতাংশ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে ঋণ পেয়েছে।

জরিপে অংশ গ্রহণকারী যুবদের মধ্যে মাত্র ৭ শতাংশ যুব কখনো একবার হলেও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সিটিজেন চার্টার দেখেছেন যাদের মধ্যে ৫০ শতাংশ যুব উন্নয়নের কার্যালয় থেকে সিটিজেন চার্টার দেখেছেন এবং মাত্র ১ শতাংশ যুব পূর্বে কখনো একবার হলেও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ওয়েব সাইট ভিজিট করেছে।

উল্লেখ্য,একশন এইড বাংলাদেশের অর্থায়নে স্থানীয় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ডোক্যাপ বরগুনা জেলায় ইয়ুথ লিড ডিজিটাল এনগেজমেন্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নরা (ভলেন্টিয়ার) বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের সেবার বাস্তব চিত্র জানার জন্য তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ করে থাকে পাশাপাশি জনমুখী সরকারী সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রচারণা ও সরকারী দপ্তরের সাথে এডভোকেসি করেন।