Posted on

বরগুনায় গ্যানি ব্যাগ তলব ও নির্বাচন বাতিল চেয়ে মামলা করলেন আরো ২ পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী


এম আর অভি, বরগুনা প্রতিনিধি:
বরগুনায় গ্যানি ব্যাগ তলব ও নির্বাচন বাতিল চেয়ে আদালতে মামলা দায়ের করলেন পৌরসভা নির্বাচনে ভোটে পরাজিত হয়ে আরো ২ কাউন্সিলর প্রার্থী। নির্বাচন বাতিল চেয়ে (২৮ ফ্রেরুয়ারী) রোববার দুপুরে বরগুনা যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত ও নির্বাচনী ট্রাইবুনালের (ভারপ্রাপ্ত) বিচারক আহমদ সাঈদ এর আদালতে এ মামলা দায়ের করেন পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আতাউর রহমান ।
এ বছরের ৩০ জানুয়ারী বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনে ভোটে নির্বাচিত (বিজয়ী ) কাউন্সিলর মীর আরাফাত জামান ( তুষার ) সহ ১০ জনকে বিবাদী করে নির্বাচন বাতিল চেয়ে আদালতে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আতাউর রহমান এ মামলা দায়ের করেন।
বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনে মামলার বাদী মো. আতাউর রহমান (পানির বোতল ) এবং (বিজয়ী ) কাউন্সিলর মীর আরাফাত জামান ( তুষার) (টেবিল ল্যাম্প) প্রতীক নিয়ে ২ প্রার্থী প্রতিদ্ধন্ধীতা করেন। ঔই ওয়ার্ডের বরগুনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩০ জানুয়ারী বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর মীর আরাফাত জামান ( তুষার )
(টেবিল ল্যাম্প) প্রতীকে ৫শ ৭৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত (বিজয়ী) হন এবং প্রতিদ্ধন্ধী প্রার্থী মামলার বাদী মো. আতাউর রহমান (পানির বোতল ) প্রতীকে ৫শ ৭১ ভোট পেয়ে পরাজিত হন । এখানে বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর মধ্যে ৫ভোটের ব্যবধান রয়েছে। এ ওয়ার্ডে মোট ৫ প্রার্থী প্রতিদ্ধন্ধিতা করেন এদের মধ্যে অন্য প্রার্থী জাকির হোসেন (উটপাখি) প্রতীকে ৪শত ৪ ভোট , মো.হুমায়ুন কবির (ডালিম) প্রতীকে ৪৮ভোট এবং সুকদেব বিশ্বাস (পাঞ্জাবি) প্রতীকে ১৬৯ ভোট পেয়ে ছিলেন।
অপরদিকে গত ২৩ শে ফ্রেরুয়ারী মঙ্গলবার বরগুনা পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.মমিনুল ইসলাম মাসুদ গ্যানি ব্যাগ তলব চেয়ে বরগুনা যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত ও নির্বাচনী ট্রাইবুনালে একটি মামলা দায়ের করেন।
মামলা সুত্রে জানাগেছে, বিগত ৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত বরগুনা পৌরসভা ৯ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে গ্যানি ব্যাগ তলব করার দাবীতে মামলা দায়ের করেন পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.মমিনুল ইসলাম মাসুদ । পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.মমিনুল ইসলাম মাসুদ ঔই ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে বিজয়ী কাউন্সিলর মো. ফারুক সিকদারকে বিবাদী করে আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।
বরগুনা সরকারি কলেজ কেন্দ্রে ৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো.ফারুক সিকদার (উটপাখি) প্রতীকে ৮শ ৯০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত (বিজয়ী) হন এবং প্রতিদ্ধন্ধী পরাজিত প্রার্থী মামলার বাদী মো.মমিনুল ইসলাম মাসুদ (পানির বোতল) প্রতীকে ৮শ ৮০ ভোট পান। এখানে তাদের মধ্যে ১০ ভোটের ব্যবদান রয়েছে। এ ওয়ার্ডে সাধারণ পুরুষ আসনে মোট ৩ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্ধন্ধীতা করেন। এদের মধ্যে অন্য প্রার্থী মোসা. ফেরদৌসি বেগম ডালিম প্রতীকে কোন ভোট পায়নি।
এর পূর্বে গত ২২ শে ফ্রেরুয়ারী সোমবার ও (২৩ ফ্রেরুয়ারী) মঙ্গলবার দুপুরে আরো ৩ পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী বরগুনা যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত ও নির্বাচনী ট্রাইবুনালে মামলা দায়ের করেছেন। এদের মধ্যে পুনরায় বাছাই ও ভোট গননার লক্ষ্যে (২৩ ফ্রেরুয়ারী) মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় বরগুনা যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত ও নির্বাচনী ট্রাইবুনালের (ভারপ্রাপ্ত) বিচারক আহমদ সাঈদ এর আদালতে এ মামলা দায়ের করেন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো. মিজানুর রহমান খোকন ।
বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনে মামলার বাদী মো. মিজানুর রহমান খোকন (উটপাখি) এবং বিবাদী মো. আল আমীন (পানির বোতল) প্রতীক নিয়ে এ ২ প্রার্থী প্রতিদ্ধন্ধীতা করেন ।ঐ ওয়ার্ডের গগন মেমোরিয়াল হাইস্কুল কেন্দ্রে ৩০ জানুয়ারী বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর মো. আল আমীন (পানির বোতল) প্রতীকে ১২শ ৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত (বিজয়ী) হন এবং প্রতিদ্ধন্ধী প্রার্থী মামলার বাদী মো. মিজানুর রহমান খোকন (উটপাখি) প্রতীকে ১২শ ৬০ ভোট পেয়ে পরাজিত হন । এখানে বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর মধ্যের ১৩ ভোটের ব্যবধান রয়েছে।
এছাড়াও গত ২২ শে ফ্রেরুয়ারী সোমবার বরগুনা পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.মনিরুজ্জামান জামাল যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত ও নির্বাচনী ট্রাইবুনালে একটি মামলা দায়ের করেন।
জানাগেছে, বিগত ৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত বরগুনা পৌরসভা ৫ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে ১নং প্রতিপক্ষের নির্বাচনী ফলাফল বাতিল ও বাদীকে নির্বাচিত ঘোষণা করার দাবীতে মামলা দায়ের করেন পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.মনিরুজ্জামান জামাল । পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.মনিরুজ্জামান জামাল ঔই ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে বিজয়ী কাউন্সিলর মো.জাহিদুল করিম বাবুসহ ৩৬ জনকে বিবাদী করে আদালতে এ মামলা দায়ের করেন ।
পিটিআই (একাডেমী ভবন) কেন্দ্রে ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো.জাহিদুল করিম বাবু (পানির বোতল) প্রতীকে ৮শ ৩০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত (বিজয়ী) হন এবং প্রতিদ্ধন্ধী পরাজিত প্রার্থী মামলার বাদী মো.মনিরুজ্জামান জামাল (উটপাখি) প্রতীকে ৭শ ৯২ ভোট পান। তাদের মধ্যে ৩৮ ভোটের ব্যবদান রয়েছে। এ ওয়ার্ডে সাধারণ পুরুষ আসনে মোট ৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্ধন্ধীতা করেন। এর মধ্যে অন্য ৩ প্রার্থী মাহমুদুল বারী (পাঞ্জাবী) প্রতীকে ২৯,আব্বাস উদ্দিন (টেবিল ল্যাম্প) প্রতীকে ১৯ এবং মো. সাইফুল হক শামীম (ডালিম) প্রতীকে ৩শ১৭ ভোট পেয়েছিলেন।
৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে ১নং প্রতিপক্ষের নির্বাচনী ফলাফল বাতিল ও বাদীকে নির্বাচিত ঘোষণা করার দাবীতে মামলা দায়ের করেন ঐ ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মো.তৌহিদ মোল্লা । তিনি ৬নং ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের ভোটে বিজয়ী কাউন্সিলর মো. কবিরুর রহমানসহ ২১ জনকে বিবাদী করে একটি মামলা দায়ের করেন।
দক্ষিণ বরগুনা এ লতিফ পৌর সরকারি প্রথিমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. কবিরুর রহমান (পাঞ্জাবি) প্রতীকে ৬শ৭২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত (বিজয়ী) হন এবং প্রতিদ্ধন্ধী প্রার্থী মামলার বাদী মো.তৌহিদ মোল্লা (পানির বোতল ) প্রতীকে ৬ শ ৫৭ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৫ ভোটের ব্যবধান রয়েছে।
নির্বাচনী ফলাফল বাতিল ও গ্যানি ব্যাগ তলব দাবী করে এ পর্যন্ত বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে পরাজিত হয়ে মোট ৫ কাউন্সিলর প্রার্থী আদালতের শরনাপন্ন হয়েছেন।
আদালত সুত্রে জানাগেছে, বরগুনা যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত ও নির্বাচনী ট্রাইবুনালে নির্বাচন সংক্রান্ত ৫টি মামলা হয়েছে।
উল্লেখ্য, সারাদেশে একযোগে তৃতীয় ধাপে ৬৪ টি পৌরসভা সাধারণ নির্বাচনের অংশ হিসেবে বরগুনা পৌরসভা নির্বাচন গত ৩০ জানুয়ারী শনিবার ভোট গ্রহণ হয়। এ নির্বাচনে বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে ৯ মেয়র প্রার্থী, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১৪ প্রার্থী এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৫ মোট ৫৮ প্রার্থী অংশ গ্রহন করছে। এদের মধ্যে ১ মেয়র, ৩ সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর এবং ৯ সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী জয়লাভ করেছেন।