Posted on

বগুড়ায় যৌতুক মামলার বাদীনিকে আসামী পক্ষের হুমকি


আব্দুল ওয়াদুদ,বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়ায় যৌতুক মামলা করায় বাদিনীকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শন ও হুমকি দিচ্ছে আসামী পক্ষের লোকজন। এঘটনায় বাদিনী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।
মামলা সূত্রে জানাগেছে, লালমনিরহাট জেলার আদিতমারি উপজেলার মসরদৈল জোড় গ্রামের অছিমদ্দিনের ছেলে, পুলিশ সদস্য মোঃ শাহজাহানের সাথে ২০২০ সালের ৩০ আগষ্ট বগুড়া শহরের ঝোপগাড়ী এলাকার মোহাম্মদ আলী কন্যা মোছাঃ নাহিমা সুলতানা মুন্নির বিয়ে হয়। বিয়েল পর থেকেই স্বামী শাহজাহান আলী তার পেশাগত পদোন্নতির জন্য শশুরের নিকট যৌতুক দাবী করে। চাহিদা মত যৌতুক দিতে না পারায় একই বছরের ২২ সেপ্টেম্বর উক্ত শাহজাহান আলী মুন্নিকে তালাক প্রদান করে। এঘটনার একদিন পরই শাহজাহান আলী তার ভুল বুঝতে পেরে পুনরায় ১০ লক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য্য করে মুন্নিকে বিয়ে করে। কিছুদিন সংসার করার পর সে আবারও ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে। এমনকি যৌতুক না দিলে দ্বিতীয় বিয়ে করার হুমকি দেয়। এ অবস্থায় গত ৩০/১১/২০২০ তারিখে নাহিমা সুলতানা মুন্নি বাদী হয়ে জেলা বগুড়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সদর থানা আমলী আদালতে শাহজাহান আলীর বিরুদ্ধে যৌতুক নিরোধ আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। আসামী শাহজাহান আলী ২৪/০২/২০২১ তারিখে আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এরপর থেকে আসামীর লোকজন মামলা প্রত্যাহারের জন্য মুন্নি ও তার পরিবারের লোকজনের ওপর চাপ প্রয়োগ করে আসছে। মামলা তুলে না নিলে নানা ধরনের হুমকি-ধামি দিচ্ছে। এতে মুন্নির পরিবার চরম নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছে। তারা প্রশাসনের সহয়োগিতা কামনা করেছেন।
উল্লেখ্য, আসামী পুলিশ সদস্য শাহজাহান আলী ২০১৭ সালে রংপুরের পীলগাছা এলাকায় দোলন আক্তার নামে আরেক মেয়েকে বিয়ে করে। যৌতুক না পেয়ে তাকেও তালাক প্রদান করে। এঘটনায় দোলন আক্তার শাহজাহান আলীর বিরুদ্ধে রংপুর জুডিয়িশাল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।