Posted on

নিজেদের আমিরকে হত্যাকারীদের হাতে ধর্ম নিরাপদ নয়


নিজস্ব প্রতিবেদক :
কওমি মাদ্রাসার শিক্ষকদের ও কোমলমতি শিশুদের একটি উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর রাজনৈতিক অভিলাস চরিতার্থ করার কর্মকাণ্ডকে বর্জন করার আহ্বান জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, এ উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী তাদের রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার জন্য কওমি মাদ্রাসা ও কোমলমতি শিশুদের ব্যবহার করছে এটা অত্যন্ত ন্যক্কার ও দুঃখজনক।

রোববার (২৮ মার্চ) বিকেলে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আমি কওমি মাদ্রাসার সবাইকে অনুরোধ জানাবো যে তাদের রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার জন্য আপনারা হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হবেন না। এ উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করতে কওমি মাদ্রাসাগুলো ব্যবহার করছে। তারা মাদ্রাসার কোমলমতি শিশুদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। দয়া করে কারো রাজনৈতিক অভিলাষের ঢাল হিসেবে ব্যবহার হবেন না। বর্তমান সরকার কওমি মাদ্রসার জন্য অনেক কিছু করেছে এবং ইসলামের খেদমতের জন্য অনেক কিছু করেছে সরকার। তবে সরকার নৈরাজ্য বন্ধ করার জন্য বদ্ধ পরিকর।
তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, হেফাজতের আমির ছিলেন মাওলানা আহমেদ শফী। তার বয়স শতবর্ষের কাছাকাছি ছিল। তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ আনা হয়েছে এবং মামলা দায়ের করা হয়েছে যে তাকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। যে মামলা তদন্তাধীন আছে। তাদের অভিযোগ হচ্ছে মাওলানা শফীর নাকে রাইস টিউব ছিল এবং তাকে অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছিলো। যারা হামলা-হাঙ্গামা করেছিল তারা মাওলানা আহমেদ শফীর অক্সিজেন খুলে নিয়েছিল। সেই কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। যারা নিজেদের আমিরকে হত্যা করার মতো অপকর্ম করে তাদের হাতে ধর্ম রাষ্ট্র কোনটাই নিরাপদ নয়। তাই যে নেতারা এ কাজটি করেছেন তাদের রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার জন্যই আজ এ ঘটনা ঘটাচ্ছেন।

সাম্প্রতিক সময়ের বিভিন্ন ঘটনায় সরকার কি ইসলামী দলগুলোকে নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, সরকার যেকোন নৈরাজ্য দমনে বদ্ধপরিকর। কারণ সরকারের দায়িত্ব জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দেওয়া। সরকারের দায়িত্ব সরকারি সম্পত্তি ও জনগণের সম্পত্তি রক্ষা করা। সুতরাং আজ যারা এ কাজগুলো করছেন, সরকারের দায়িত্ব জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধানের জন্য রাষ্ট্রের শান্তি, স্থিতি এবং সম্প্রীতি রক্ষার জন্য তাদের দমন করা। সরকার অবশ্যই এটি কঠোর হস্তে দমন করবে।