Posted on

ধুনটে মধ্যরাতে সরস্বতী প্রতিমা ভাঙচুর


মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ,বগুড়া প্রতিনিধিঃ
বগুড়ার ধুনট উপজেলায় মধ্য রাতে মন্দিরো সরস্বতী প্রতিমা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার টেংরাখালী হালদারপাড়ায় রাধা গোবিন্দ মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা টেংরাখালী জলমহাল নিয়ে বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটার আশংকা করছেন ।

স্থানীয় হালদারপাড়ার বাসিন্দারা জানান, গ্রামের একমাত্র রাধা গোবিন্দ মন্দির, যেখানে সরস্বতী লক্ষী পুজা ও হরিবাসর অনুষ্ঠিত হয়। মন্দিরটিতে প্রতিদিন সন্ধ্যা বাঁতি ও পুজা করার জন্য সুমতি হালদার নামের একজন নারী দায়িত্ব পালন করেন। তিনি প্রায়ই ওই মন্দিরে রাতে ঘুমিয়ে থাকেন। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি রাধা গোবিন্দ মন্দিরে সরস্বতী পুজা অনুষ্ঠিত হয়। পুজা শেষ হলেও সরস্বতী প্রতিমা বিসর্জন না দিয়ে মন্দিরে সংরক্ষণ করা হয়। সোমবার দিবাগত রাতে সুমতি হালদার নিজের বাড়িতে ছিলেন। এ সুযোগে মধ্যরাতে ওই মন্দিরে দুর্বৃত্তরা সরস্বতী দেবীর প্রতিমাথর মাথা ভেঙে ফেলে। এছাড়া মন্দিরের ভিতরে থাকা সুমতি হালদারের কয়েকটি কাপড়ে অগ্নিসংযোগ করে। ভোরে গ্রামের লোকজন বিষয়টি দেখে পুলিশকে জানান ।

রাধা গোবিন্দ মন্দির কমিটির সভাপতি খোকা চন্দ্র হালদার বলেন, সোমবার দিবাগত রাত ৩টায় মন্দিরে দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়েছে। তারা মন্দিরে থাকা সরস্বতী প্রতিমার মাথা ভেঙ্গে ফেলে। এছাড়া মন্দিরের ছামিয়ানার কাপড় ও মন্দিরের সেবাদাসী সুমতি হালদারের কাপড় চোপড়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে মন্দিরের কিছু ক্ষতি হয়েছে।
ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, মঙ্গলবার ভোরে খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। দুর্বৃত্তরা মন্দিরে থাকা সরস্বতী দেবীর প্রতিমার মাথা ভেঙে ফেলেছে। গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা বলে ভাঙচুর হওয়া প্রতিমাটি বিসর্জন দেওয়া হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ দায়ের হয়নি।

Posted on

ঝিনাইদহে বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ

ঝিনাইদহে বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে মঙ্গলবার সকালে শহরের এইচএসএস সড়কের জেলা বিএনপির কার্যালয় চত্বরে সকাল থেকে জড়ো হয় দলটির নেতাকর্মীরা। পরে পুলিশের বাধায় বিক্ষোভ মিছিল করতে না পারলেও সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে জেলা বিএনপি’র যুগ্ম-আহবায়ক জাহিদুল ইসলাম মনার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব এ্যাড. এম এ মজিদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন জেলা বিএনপি’র যুগ্ম-আহবায়ক আক্তারুজ্জামান , মুন্সি কামাল আযাদ পান্নু, সদর উপজেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব আলমগীর হোসেন, সদর পৌর সদস্য সচিব মাহবুবুর রহমান শেখর, যুগ্ম-আহবায়ক লাকি আহমেদসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
সমাবেশে সঞ্চলনা করেন জেলা বিএনপি’র যুগ্ম-আহবায়ক ও পৌর বিএনপি’র আহবায়ক আব্দুল মজিদ বিশ্বাস।
বক্তারা, স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তীর দিনে হেফাজতের কর্মীদের হত্যা করা হয়েছে উল্লেখ করে এর তীব্র প্রতিবাদ জানান। সেই সাথে জড়িত দোষী ব্যক্তিদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি করেন।

Posted on

মোরেলগঞ্জের বহরবুনিয়ায় ইউনিয়নে নির্বাচনী সহিংসতা ভাংচুর লুটপাট অগ্নিসংযোগের অভিযোগ


শামীম আহসান মল্লিক, বাগেরহাট প্রতিনিধি:
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার বহরবুনিয়া ইউনিয়নে নির্বাচনী জের হিসেবে বসতবাড়িতে হামলা,ভাংচুর , লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার রাতে ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডে একই রাতে পৃথক পৃথক ঘটনা ঘটে। পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
সরেজমিনে জানা গেছে, সাবেক মেম্বর বিপেন কমল মাধ্যামিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাষ্টার হারুন অর রশিদ আপেল প্রতিক নিয়ে মেম্বর পদে ২ নং ওয়ার্ড থেকে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন। এ নির্বাচনী জের ধরে প্রতিবেশী একই ওয়ার্ডের সিলিং ফ্যান প্রতিকের প্রার্থী হেমায়েত হাওলাদারের নেতৃত্বে সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা রাত সাড়ে ৮ টার দিকে হারুন অর রশিদ বাড়িতে হামলা চালায়। হামলাকারীরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে আলমারী ও সুকেজ ভেঙ্গে নগদ ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকার ও ৭ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়।
এ আগে দুর্বৃত্তরা তালতলা বজারের হারুন অর রশিদের নির্বাচনী অফিস ভেঙ্গে তছনছ করে এবং তার কর্মী তালতলা বাজারের সাইদুর রহমানের মুদি দোকানে হামলা ভাংচুর করে নগদ অর্থ সহ ২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিসাধন করে। একই সময়ে দুর্বৃত্তরা অপর কর্মী জাকির ফরাজীর চানাচুর তৈরির কারকাখানা অগ্নিসংযোগ করে সম্পূর্ণ পুড়িয়ে দেয়। এছাড়াও হেমায়েত হাওলাদারের নেতৃত্বে সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা মহিত হাওলাদারের খড়ের গাদায় অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করে।
মেম্বর প্রার্থী হারুন অর রশিদ, ব্যবসায়ী সাইদুর রহমান, জাকিরের মা চন্দ্রভানু বেগম সহ এলাকাবাসি জানান, হেমায়েত হাওলাদার .শাহ আলী ও তাদের ভাইপো হাসানের নেতৃত্বে ২০-৩০ টি মোটর সাইকেলে এসে দা,চাইনিজ কুড়াল ,রামদা নিয়ে এ সহিসংসতার ঘটনা ঘটায়। এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে ও হামলাকারীদের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।
থানা অফিসার ইন চার্জ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানান, পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। সাবেক ইউপি সদস্য হারুন অর রশিদ, হেমায়েত হাওলাদার পরস্পর আত্মীয় প্রতিবেশি। দুজনই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধী। অগ্নিসংযোগের বিষয়টি রহস্যজনক।

Posted on

বরগুনায় পুলিশের হাতে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক লাঞ্চিত ও বিক্ষোভ সমাবেশ পন্ড


এম আর অভি, বরগুনা প্রতিনিধিঃ
বরগুনায় পুলিশের হাতে জেলা বিএনপির,র সাধারণ সম্পাদক এ্যাড মো. আব্দুল হালিম লাঞ্চিত হয়েছেন। ৩০মার্চ মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে জেলা বিএনপি,র কার্যালয়ে সারাদেশের ন্যায় পূর্বঘোষিত বিক্ষোভ সমাবেশে অংশ নিতে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড মো. আব্দুল হালিম শহরের লঞ্চঘাট বিএনপি অফিসে ঢুকতে চাইলে তাঁকে পুলিশ সদস্যরা অফিসে ঢুকতে বাধাঁ দেয়। এ সময় তিনি অফিসে ঢুকতে চেষ্টা করলে পুলিশ তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় এবং পিটিয়ে আহত করে। বিক্ষোভে অংশ নিতে আশা জেলা বিএনপির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম মোল্লা , সাংগঠনিক সম্পাদক মো. হুমায়ুন হাসান শাহিন, মহিলা দলের সভানেত্রী রিমা জামান, জেলা যুব দলের সভাপতি মো. জাহিদ হোসেন মোল্লা সহ জাতীয়তা বাদী দল বিএনপি,র বরগুনা জেলা শাখার নেতাকর্মীদের পুলিশ জেলা বিএনপির কার্যালয় থেকে বের করে দেয়। পরে বিএনপি,র বিক্ষোভ পন্ড হয়ে যায়। এ সময় পুলিশের লাঠি চার্জে মহিলা দলের সভানেত্রী রিমা জামান, জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান রাজ্জাক ও উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব ইমরান মৃধা, আল- মামুন গুরুত্বর আহত হয়।

Posted on

মোরেলগঞ্জে ৬১ মুক্তিযোদ্ধার সাংবাদিক সম্মেলন, একই কমান্ডারের দ্বিমুখী মন্তব্য


শামীম আহসান মল্লিক, মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি:
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বশেষ যাচাই-বাছাই কমিটির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন ৬১ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা। মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় মোরেলগঞ্জ প্রেসক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভাতাভূক্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা মে. মুনিরুজ্জামান হাওলাদার।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, গত ১২ ও ১৩ই ফেব্রুয়ারি স্থানীয় ১১১ জন মুক্তিযোদ্ধার স্বাক্ষী ও কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হয়। ওই যাচাই-বাছাই কমিটিতে এমপি’র মনোনীত সদস্য ছিলেন মো. শাহ আলম হাওলাদার। তিনি ২০০৪ সালের যাচাই-বাছাইয়ে সৈয়দ নূর মোহাম্মদ, মুনীরুজ্জামান হাওলাদারসহ অনেককে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বাক্ষ দিয়েলেও সর্বশেষ যাচাই-বাছাইয়ে তাদেরকেই আবার ‘মুক্তিযোদ্ধা নয়’ বলে স্বাক্ষ দিয়েছেন।
এমন দ্বিমুখী সিদ্ধান্তের কারনে সর্বশেষ যাচাই-বাছাই কমিটির মতামত প্রহসনমূলক বলে দাবি করেছেন মুক্তিযোদ্ধাদের এই অংশটি। তারা বলেন, মুজিব বাহিনীর সনদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব) জিয়া উদ্দিন ও কবির আহমেদ মধূর সদর থাকা স্বত্ত্বেও রহস্যজনক কারনে ৬১ জন মুক্তিযোদ্ধাকে অমুক্তিযোদ্ধা আখ্যা দিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, সকল যাচাই-বাছাইই নীতিমালা অনুযায়ী হয়েছে। অতীতে কোন ভুল হয়ে থাকতে পারে এবার বোর্ড বসিয়ে সে সবের সংশোধন করা হয়েছে।

Posted on

বাগেরহাটের শরণখোলায় এক পরিবারের রান্না ঘরের পাশ থেকে ১০ ফুট লম্বা অজগর সাপ উদ্ধার


শামীম আহসান মল্লিক, বাগেরহাট প্রতিনিধি \
বাগেরহাটের শরণখোলায় এক পরিবারের রান্না ঘরের পাশ থেকে ১০ ফুট লম্বা একটি অজগর সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে উদ্ধারকৃত অজগরটি বন রক্ষিদের সহায়তায় সুন্দরবনে অবমুক্ত করা হয়।
পুর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ জয়নাল আবেদীন জানান, স্থানীয় খুড়িয়াখালী গ্রামের রুস্তুম গোলদারের ঘরের পাশে সাপটিকে দেখতে পেয়ে তারা বন সুরক্ষা বিষয়ক ভিটিআরটি টীমের সদস্যদের খবর দিলে তারা সেটি রেঞ্জ অফিসে নিযে আসে পরে তিনি উপস্থিত থেকে অজগরটি বনে অবমুক্ত করেন। সাপটির ওজন ১২ কে,জি বলে জানিয়েছেন ভিটিআরটি টীমের স্থানীয় সুপার ভাইজার আলম হাওলাদার।

Posted on

বাগেরহাটের শরণখােলায় মাদরাসা ছাত্রের বিরুদ্ধে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর হিদু ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে মামলা হয়েছে


শামীম আহসান মল্লিক, বাগেরহাট প্রতিনিধি:
বাগেরহাটের শরণখােলায় মাদরাসা ছাত্র কর্তৃক হিন্দু সম্প্রদায়ের এক স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার সাউথখালী ইউনিয়নের চালিতাবুনিয়া গ্রামে। ধর্ষিতা স্থানীয় সুন্দরবন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী। এ ঘটনায় বুধবার সকালে শরণখােলা থানায় একটি মামলা হয়েছে।
পুলিশ ও মামলা সূত্র জানা গেছে, ধর্ষিতা ওই ছাত্রী নানা বাড়ি থেকে লেখাপড়া করে। প্রতিবেশী বগী গ্রামের লিটন শেখের পুত্র সুন্দরবন বগী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার ১০ম শ্রেনীর ছাত্র সবুজ শেখ (১৫) তাকে বিভিন্ন সময়ে উত্যাক্ত করতো। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে ওই ছাত্রী মামা বাড়ি থেকে নানা বাড়ি ফেরার সময় সবুজ শেখ ও তার তিন বন্ধু মিলে জোরপূর্বক পার্শবর্তী বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে। এসময় মেয়েটির চিৎকারে তার মামি ঘর থেকে বেড়িয়ে এলে ধর্ষকরা দৌড়ে পালিয়ে যায়।
শরণখােলা থানার অফিসার ইন চার্জ মােঃ সাইদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় মেয়েটির মামা বাদী হয়ে সবুজ শেখসহ অজ্ঞাত আরো দুই জনের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। বুধবার সকালে প্রধান আসামী সবুজ শেখকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মেয়েটিকে পুলিশি হেফাজতে ডাক্তারী পরীক্ষা করাতে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানাে হয়েছে।

Posted on

বরগুনায় উত্তরণের উদ্যোগে ওয়াস এসডিজি বিষয়ক সচেতনতা ও চাহিদা নিরুপন কর্মশালা


এম আর অভি,বরগুনা প্রতিনিধি:
বরগুনায় বে-সরকারি সংস্থা উত্তরণের উদ্যোগে ওয়াস এসডিজি বিষয়ক সচেতনতা ও চাহিদা নিরুপন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৩১ মার্চ বুধবার বেলা ১১টায় পৌরসভা মিলনায়তন কক্ষে সিমাভী,র অর্থায়নে উত্তরণ এর আয়োজনে বরগুনায় ওয়াস এসডিজি ওয়াই বাংলাদেশ এ প্রকল্পটির সচেনতা বৃদ্ধি ও নিরুপন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
বরগুনা পৌরসভার কাউন্সিলর মো. ফারুক সিকদারের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন পৌর সচিব মো.রফিকুল ইসলাম, কাউন্সিলর মোসা. হোসনে আরা চম্পা, মোসা.মমতাজ বেগম, মো.কবিরুর রহমান, মো. তারিকুজ্জামান টিটু, মো. সাইদুর রহমান সজিব, মো. রমিজ উদ্দিন মোল্লা, মো.আল-আমিন তালুকদার, মীর আরাফাত জামান তুষার, বস্তি-উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. কামাল হোসেন ,স্যানিটেরি ইন্সেপেক্টর মো.ইব্রাহিম খলিল প্রমূখ।
কর্মশালায় সভাপতি কাউন্সিলর মো. ফারুক সিকদার বলেন, ওয়াস এসডিজি,র মান উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি বে-সরকারি সংস্থা গুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। এই প্রকল্পের ফলে পৌরসভার সেবা নিশ্চিত হবে বলে আশা করেন তিনি। এতে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে। তিনি এই প্রকল্পের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে সহযোগিতার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। তিনি করোনা কালিন সময়ে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান।
উত্তরণের এ্যাডভোকেসী ও টেকনিক্যাল অফিসার এস কে রুসায়েদ উল্লাহ স্বাগত বক্তব্যে প্রকল্পের অগ্রগতি ও পরিকল্পনা তুলে ধরে এই প্রকল্পের বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করেন এবং প্রকল্পের কার্যক্রম অবহিত করেন ।
উল্লেখ্য যে, উত্তরণ ২টি জেলার ৩টি উপজেলায় এই প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা হিসেবে কাজ করছে। এছাড়াও উত্তরণ দেশের ১৮টি জেলায় কাজ করছে।

Posted on

মওদুদ বাংলাদেশের কিছু গোপন তথ্য পাচার করেছিলেন : প্রধানমন্ত্রী


নিজস্ব প্রতিবেদক :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ কখনোই ছাত্রলীগ করেননি, সবসময় সরকার ঘেঁষাই ছিলেন। তিনি ব্যারিস্টারি পাস করে ৬৯ সালে বাংলাদেশে আসেন। কবি জসিম উদ্দিনের জামাতা হিসেবে সবসময় তার প্রতি একটা সহানুভূতি ছিল। কিছু কিছু কাজ সবসময় তার ভিন্ন ধরনের ছিল। যার কারণে ৭৩ সালে তাকে একবার গ্রেফতারও করা হয়। কারণ (মওদুদ) বাংলাদেশের কিছু গোপন তথ্য পাচার করেছিলেন।’

‘এজন্য কবি জসিম উদ্দিন সাহেব এসেছিলেন আমাদের বাসায়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কাছে অনুরোধ করলেন যেন তাকে (মওদুদ) মুক্তি দেয়া হয়।’

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা।

কোনো এমপি মারা গেলে সংসদে শোক প্রস্তাব আনার পর আলোচনার রেওয়াজ রয়েছে। গত অধিবেশন শেষ হওয়ার পর ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ অনেকে মারা গেছেন। প্রসঙ্গক্রমে তাদের নিয়েও আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে বেলা ১১টায় স্পিকার ড. শিরীন শারিমন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।
মওদুদ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেফতার করা হয় মওদুদ আহমদ তখন নিয়োগভুক্ত আইনজীবী ছিলেন না।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার এখনো মনে আছে যখন আইয়ুব খান গোলটেবিল বৈঠক ডাকল, বঙ্গবন্ধুকে যখন প্যারোলে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব হলো; তখন সে প্রস্তাব আমার মা প্রত্যাহার করে বলেছেন- মামলা প্রত্যাহার করে যেন মুক্ত মানুষ হিসেবেই তাকে (বঙ্গবন্ধু) জামিন দেয়া হয়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই মেসেজটা আমি পৌঁছে দিয়েছিলাম আমাদের নেতাদের কাছে। তখন আমাদের বাসায় ব্যারিস্টার মওদুদ এবং আমিরুল ইসলাম আসেন। ব্যারিস্টার আমিরুল হোসেন বলেছিলেন, “তুমি কেমন মেয়ে পিতার মু্ক্তি চাও না?”। তার এ কথায় ব্যারিস্টার মওদুদ সায় দিয়েছিলেন। তখন আমি বলে দিয়েছিলাম বঙ্গবন্ধু মুক্ত হয়ে বেরিয়ে আসবেন। আপনারা বিভ্রান্তি ছড়াবেন না।’

মওদুদ সম্পর্কে শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘তিনি মুখে যাই বলুক তার লেখায় নিজের আপন মাধুরি মিশিয়ে কিছু লিখেছেন। তারপর আমি বলব- তিনি সবসময় দলবদল করতে পছন্দ করতেন। তিনি সাজাপ্রাপ্ত একজন আসামি ছিলেন। এরশাদ রাষ্ট্রপতি হয়ে তাকে মন্ত্রিত্ব দিলেন। তার মধ্যে একটা ট্যালেন্ট ছিল। কিন্তু সেই ট্যালেন্ট যদি দেশপ্রেমের কাজে লাগাতেন তাহলে ভালো হতো।’

এর আগে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘শেখ রাসেলের জন্মদিন তিনি যথাযথভাবে পালন করেছেন প্রতিবছরই। আজ তিনি আর আমাদের মাঝে নেই। গত কয়েকদিন আগেও কথা বললাম। তিনি সবসময় রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। যখনই আমি শুনলাম তিনি অসুস্থ, আমি চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে নিতেই তিনি চলে গেলেন। বিষয়টা খুবই দুঃখজনক।’

মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, ‘ছাত্রজীবন থেকে ছাত্রলীগ করেছেন, বিভিন্ন সংগঠন করেছেন, বিদেশে পড়াশোনা করেছে। প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হয়েছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সবগুলো সংগঠনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি রাজনৈতিক সচেতন একজন মানুষ।’

এইচটি ইমাম সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি আমলা হলেও রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত সচেতন ছিলেন। তিনি আন্দোলন-সংগ্রামে যথেষ্ট ভূমিকা রাখতেন।’

Posted on

হেফাজতের তাণ্ডব ইসলামে কালিমা লেপন করেছে : তথ্যমন্ত্রী


নিজস্ব প্রতিবেদক :
আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্নস্থানে যে তাণ্ডব চালানো হয়েছে, সেটি একটি সংগঠনের ব্যানারে হলেও তাণ্ডবের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল বিএনপি-জামায়াত। তারা মিলে এই ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তাণ্ডব ইসলামের ওপর কালিমা লেপন করেছে।

তিনি বলেন, তারা স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশকে আফগানিস্তান বানানোর জন্য। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন অজুহাত হিসেবে দাঁড় করিয়েছিল মাত্র। ইসলাম কখনো এগুলো সমর্থন করে না, এই অপশক্তিকে রুখতে হবে।
আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামে মুজিব কর্ণার ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রিসার্চ সেন্টার ফর ইসলাম এন্ড ইন্টাররিলিজিয়াস ডায়ালগ (বিআরসিআইআইডি) এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী এমপি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন খাদিজাতুল আনোয়ার সনি এমপি, উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ারুল আজিম আরিফ, ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য রিজিয়া রেজা চৌধুরী, ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আহসান উল্লাহ, প্রফেসর ড. ছালেহ জহুর, শাহরিয়ার জাহান প্রমূখ।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যেভাবে নৈরাজ্য চালানো হয়েছে মানুষের ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, মানুষের সম্পদ জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, ব্যক্তিগত গাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ইসলামেতো কারো ব্যক্তিগত সম্পত্তি জ্বালিয়ে দেওয়ার কথা বলে নাই, ইসলাম তো এটি কখনো সমর্থন করে না।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আগমনের সাথে ঋণ করে যে ব্যক্তি গাড়ি কিনেছে সেটির কি সম্পর্ক প্রশ্ন রেখে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, আজকে ইসলামের কথা বলে যে অপকর্মগুলো করা হচ্ছে, আমাদের কৃষ্টি-সংস্কৃতির উপর আঘাত হানা হচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সুর সম্রাট আলাউদ্দিনের একাডেমি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, ভূমি অফিস জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, ফায়ার সার্ভিসের স্টেশনে হামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জে সৌরভ নাম বলায় এক সাংবাদিককে কালেমা পড়তে বলা হয়েছে সে হিন্দু না মুসলমান। আরেক জায়গায় কাপড় খুলে দেখার চেষ্টা করা হয়েছে সে হিন্দু নাকি মুসলমান। এগুলো ১৯৭১ সালে হানাদার বাহিনী করেছে, আজকে এই কাজগুলো যারা করছে তারা হচ্ছে ১৯৭১ সালে হানাদার বাহিনীকে বাংলাদেশে গণহত্যা করার জন্য যারা সহায়তা করেছিল সেই অপশক্তির পরবর্তী প্রজন্ম।

ড. হাছান বলেন, একটি অপশক্তি আজকে বাংলাদেশকে আফগানিস্তান বানানোর স্বপ্ন দেখছে। এই অপশক্তির সহায়ক ছিল অতীতে যারা চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত ছিল তারাও। এই বিশ্ববিদ্যালয়েও জগদ্দল পাথরের মতো এই অপশক্তি বাসা বেঁধেছিল। সেই অপশক্তির হাত থেকে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি উদ্ধার করা হয়েছে। এই অপশক্তিকে রুখতে হবে।

তিনি বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারলাম, বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টের টাকা কিছুদিন আগে হঠাৎ গায়েব হয়ে গেছে। আমি মনে করি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদ কোথায় গেল এটির অনুসন্ধান হওয়া প্রয়োজন। একই সাথে সমগ্র পৃথিবী থেকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য যে অনুদান এসেছে, সেই টাকা কারো ব্যক্তিগত কাজে এবং কোনো দলীয় কাজে ব্যবহৃত হয়েছে কিনা সেটা জনগণের স্বার্থে শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ অনুসন্ধান হওয়া প্রয়োজন। নতুন ট্রাস্টি বোর্ড এই বিষয়টিও খতিয়ে দেখবে আমি আশা করছি।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী আরো বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অতীতে বঙ্গবন্ধুর জন্ম বার্ষিকী পালন করা হয়নি, সঠিকভাবে আমাদের জাতীয় দিবসগুলো পালন করা হয়নি। আজকে এখানে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এখানে মুজিব কর্নার ও রিসার্চ সেন্টার উদ্বোধন হচ্ছে, এজন্য আমি ট্রাস্টি বোর্ড ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই।