Posted on

শৈলকুপায় সেচ ক্যানেল ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ প্রতিবাদে কৃষকদের মানবন্ধন

রবিউল ইসলাম, ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহের শৈলকুপার পুরাতন বাখরবা গ্রামের জিকে সেচ প্রকল্পের ক্যানেল ভরাট করে সড়ক নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলাকার কৃষকরা। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ‘অবিরাম উন্নয়নে বাংলাদেশ’ ফাউন্ডেশনের আয়োজনে উপজেলার সারুটিয়া ইউনিয়নের বাখরবা গ্রামে জিকে সেচ প্রকল্পের পাশে কয়েক’শ কৃষক ও গ্রামবাসী এ মানববন্ধন কর্মসুচিতে অংশ গ্রহন করেন। মানববন্ধন শেষে এক প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, মোঃ উজ্জল আলী, কৃষক সোহেল বিশ্বাস ও দুলাল বিশ্বাস। তারা অভিযোগ করে বলেন, ১৯৫৪ সালের তৎকালীন পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের যুক্তফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী অধ্যক্ষ কামরুজ্জামানের পক্ষে নির্বাচনী জনসভায় বক্তৃতা করার জন্য পুরাতন বাখরবার এই পথ দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এসেছিলেন। ১৯৭১ সালের পরবর্তী সময়ে এই রাস্তাটির ২০০ মিটার কাজ হচ্ছে তাতেও স্বচ্ছতা রাখা হচ্ছে না। রাস্তার পাশের গাছগুলো সব রাস্তার জায়গায় দাঁড়িয়ে। অথচ গ্রামের এক প্রভাবশালী ব্যক্তির কারণে সেচ ক্যানেল ভরাট করে বেআইনি কাজ করা হচ্ছে। ক্যানেলটি এলাকার কৃষকদের চাষাবাদের পানি সরবরাহের একমাত্র ভরসা। বক্রা প্রশ্ন তুলে বলেন, একজনের ব্যক্তি স্বার্থের জন্য এরকম দূর্নীতি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত স্থানে কিভাবে হয়? ক্যানেলটি ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ করলে ওই এলাকার হাজার কৃষক হুমকীর মুখে পড়বে বলে তারা অভিযোগ করেন।

Posted on

হঠাৎ পকেটে মোবাইল বিস্ফোরণে যুবক দগ্ধ

রবিউল ইসলাম , ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার চাপালী গ্রামে পকেটে রাখা মোবাইল বিস্ফোরিত হয়ে দগ্ধ হয়েছেন সুজন হোসেন (২৬) নামে এক যুবক। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অগ্নিদগ্ধ ওই যুবক উপজেলার চাপালী গ্রামের মৃত কলম আলীর ছেলে। সুজন হোসেনের বন্ধু মোবারক হোসেন জানান, চাপালী গ্রামের স্কুল মাঠে বন্ধুরা সবাই আড্ডা দিচ্ছিলাম। এসময় হঠাৎ সুজনের তার পকেটে থাকা বাটন ফোনটি বিস্ফোরিত হয়। সঙ্গে সঙ্গে প্যান্টে আগুন ধরে যায়। এরপর পাশের দোকানে থাকা পানি দিয়ে আগুন নেভানো হয়। এরপর তাকে চিকিৎসার জন্য কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডা. প্রিয়াঙ্কা বিশ্বাস জানান, মোবাইল বিস্ফোরিত হয়ে আগুনে ডান পায়ের হাটুর উপরে দগ্ধ হয়ে এক যুবক হাসপাতালে এসেছেন। তার চিকিৎসা চলছে।

Posted on

বাগেরহাটে প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ দম্পতিসহ আহত ৩


শামীম আহসান মল্লিক, বাগেরহাট প্রতিনিধি :
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ দম্পতি ও তাদের ছেলে আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে মোরেলগঞ্জ উপজেলার পুটিখালি ইউনিয়নের এবি গজালিয়া গ্রামে এঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, এবি গজালিয়া গ্রামের মোঃ শাজাহান তালুকদার (৬৫), তার স্ত্রী তহমিনা বেগম (৫৯) ও ছেলে হোসেন তালুকদার (৪০)। এদের মধ্যে মোঃ শাজাহান তালুকদারের অবস্থা আসংকাজনক। তাকে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল থেকে খুলনায় প্রেরণ করা হয়েছে।
মোঃ শাজাহান তালুকদারের ছেলে ফরহাদ তালুকদার জানান, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে স্থানীয় আবুল হাসানের নেতৃত্বে ৭/৮ জন তাদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার পিতাকে দা ও লাঠি দিয়ে মারতে থাকে। এসময় তার মা ও ভাই ঠেকাতে গেলে তাদেরও পিটিয়ে আহত করে। তার পিতা গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নেয়া হলে তার পিতা শাজাহান তালুকদারকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, পুলিখালী এলাকায় পূর্বশত্রুতার জের ধরে সংঘর্ষের খবর তিনি পেয়েছেন। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Posted on

ভ্যাকসিন পাসপোর্ট’ দেবে বাংলাদেশ


নিজস্ব প্রতিবেদক :
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক জানিয়েছেন, বাংলাদেশ করোনা ‘ভ্যাকসিন পাসপোর্ট’ দেওয়ার প্রযুক্তিগত প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের টিকা নেওয়ার পর তিনি একথা জানান।

তিনি বলেছেন, যারা করোনার দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন তাদের সনদের পাশাপাশি সরকার ‘ভ্যাকসিন পাসপোর্ট’ দেবে।

তিনি বলেন, করোনার ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার পর ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট স্বয়ংক্রিয়ভাবে (অটোমেটিক জেনারেটেড) চালু হবে। একইসঙ্গে করোনা সার্টিফিকেটও দেওয়া হবে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছি। শারীরিকভাবে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনুভব করছি না। শুরুতে ভ্যাকসিনের জন্য অনলাইনে নিবন্ধন করতে সমস্যা হয়েছিল। তবে এখন সে সমস্যা নেই, যোগ করেন পলক।

উল্লেখ্য, ‘ভ্যাকসিন পাসপোর্ট’ একটি সার্টিফিকেট। এতে কেউ ভ্যাকসিন নিয়েছেন কি না, সে তথ্য বিস্তারিত উল্লেখ থাকবে। ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকটি দেশ ভ্যাকসিন পাসপোর্ট তৈরি শুরু করেছে।

Posted on

করোনা মোকাবিলায় পারস্পারিক সহযোগিতার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর


নিজস্ব প্রতিবেদক :
উন্নয়নশীল দেশগুলোর জোট ডি-৮-এর দশম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) দুপুরের পর থেকে এ শীর্ষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শীর্ষ বৈঠকে জোটের দেশগুলোর রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা বক্তব্য রাখেন।

সম্মেলনে বর্তমান সভাপতি তুরস্কের কাছ থেকে সভাপতির দায়িত্ব নেয় বাংলাদেশ। এর মেয়াদ থাকবে পরবর্তী দুই বছর।

এবার সংস্থাটির দশম সম্মেলন ঢাকায় হওয়ার কথা ছিল। করোনাভাইরাস মহামারির পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে শীর্ষ বৈঠক ভার্চুয়াল মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে অংশ নিয়েছেন জোটের সদস্য দেশ মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদুল ফাত্তাহ সিসি, ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো, ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন, নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ বুহারি, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।
বৈঠকে চারটি বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, দক্ষতা বিকাশের মাধ্যমে আমাদের যুবকদের শক্তি বাড়ানো, আইসিটির সম্পূর্ণ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো, প্রয়োজনীয় আইনি, প্রাতিষ্ঠানিক এবং অবকাঠামোগত কাঠামো তৈরি করা এবং বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুবিধার্থে সংযোগ স্থাপনের উন্নতি।

বক্তব্যে করোনা মোকাবিলা ও মহামারির ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ডি-৮ দেশগুলোর প্রতি পারস্পারিক সহযোগিতার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

একইসঙ্গে বাংলাদেশ মানবিক কারণে মিয়ানমার থেকে আসা ১১ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা যেন তাদের নিজ আবাসভূমি রাখাইনে স্বেচ্ছায় সম্মানজনক ও স্থায়ীভাবে ফিরে যেতে পারে সে বিষয়ে আমারা শুরু থেকেই জোর দিয়ে আসছি। এই সঙ্কট যেন আর দ্রবীভূত না হয় সেজন্য আমরা আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক পর্যায়ে আলোচনা করে যাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা ডি-৮ জোটের সদস্য দেশগুলোর প্রতি কৃতজ্ঞ যে, তারা এই ইস্যুতে আমাদের সাপোর্ট দিয়ে আসছে। আমরা আশা করছি, মিয়ানমার খুব শিগগিরই তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে।

Posted on

বরগুনায় প্রযুক্তি হস্তান্তরে কৃষক-কৃষাণীর দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ


এম আর অভি, বরগুনা প্রতিনিধি:
বরগুনায় প্রযুক্তি হস্তান্তরে কৃষক-কৃষাণীর দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ প্রকল্পের আওতায় বরগুনা সদর উপজেলা কৃষি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ,উপজেলা কৃষি অফিসের বাস্তবায়নে দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়।
বরগুনা সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মো. মোস্তাফিজুর রহমান এর সভাপতিত্বে কৃষক-কৃষাণী প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের (খামার বাড়ি) উপ-পরিচালক আব্দুল অদুদ খান।
আধুনিক পদ্ধতিতে ফসল উৎপাদন কলাকৌশল কৃষক-কৃষাণী প্রশিক্ষণে এ সময় উপজেলা কৃষি অফিসের কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মো.মাহমুদুল হাসান,উপ-সহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার মো.মুনিরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।
প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, বরগুনা দূর্যোগ প্রবণ এলাকা ,তাই এখানে দূর্যোগ সহিন্সু প্রযুক্তি নির্ভর আগাম ফসল ফলাতে হবে। তাহলে আপনারা (কৃষক-কৃষাণীরা) লাভবান হবেন। বেশি করে ফলের গাছ রোপন করতে হবে। তিনি আরও বলেন আপনারা প্রশিক্ষণ নিয়ে সকল কৃষককে এ বিষয়ে অবহিত করবেন । যাতে তারাও ফসল ফলাতে আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ ও ফসল উৎপাদন কলাকৌশল ব্যবহার করে। তাছাড়াও প্রশিক্ষণে তিনি গো-খাদ্য উৎপাদন ও সংরক্ষণের কৃষকদের পরামর্শ দেন।
করোনাকালীন সময় যথাযথ স্বাস্থবিধি মেনে বরগুনা সদর উপজেলার ৩০ জন কৃষক-কৃষানীদের নিয়ে এ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়।

Posted on

টুঙ্গিপাড়ায় কৃষকের কান্না,ধান ঝলসে ৯২ কোটি টাকার ক্ষতি


দুলাল বিশ্বাবস,গোপালগঞ্জঃ
স্যার আমারে বাচান, আমার শেষ হয়ে গেছে। কষ্ট করে সুদে টাকা এনে সাড়ে ৫ বিঘা জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছিলাম কিন্তু গরম বাতাসে আমার সব শেষ হয়ে গেলো। বৃহস্পতিবার কৃষি কর্মকর্তারা ধান ক্ষেত পরিদর্শনে গেলে কান্না জড়িত কন্ঠে কথাগুলো বলেছিলেন গোপালপুর গ্রামের কৃষক অরুন বিশ্বাস। শুধু এই একজন কৃষকই নয়, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভার প্রায় ১৫ হাজার কৃষক গরম, শুস্ক ও বৃষ্টিবিহিন ঝড়ো বাতাসে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা রাকিবুল ইসলাম জানান, গত রবিবার রাতে আধাঘন্টার গরম, শুস্ক ও বৃষ্টিবিহিন ঝড়ো বাতাসে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ১৫ হাজার কৃষকের ১৮ হাজার বিঘা জমির বোরো ধান ঝলছে গেছে। এতে ৯২ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করা হয়েছে।
তিনি আরো জানান, উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়ন এক ফসলি জমি। এখানে ধানের আবাদ বেশি। এ ইউনিয়নে ৮৮০ হেক্টর জমির ধান ঝলছে গেছে। এছাড়া ডুমুরিয়া ইউনিয়নে ১৪’শ হেক্টর জমির ধান নষ্ট হয়ে গেছে। বাকি ৩ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভায় আংশিক ক্ষতি হয়েছে। কষ্টের ফসল মুহুর্তের মধ্যে নষ্ট হওয়ায় কৃষক চোখে মুখে অন্ধকার দেখছেন।
পাটগাতী ইউনিয়নের চিংগড়ী গ্রামের কৃষক কৃষ্ণ চৌধুরি বলেন, রবিবার রাতে খুব গরম বাতাস অনুভব হয়। সকালে দেখি জমির সব ধানের শীষ ঝলসে গেছে। পুরোক্ষেত সাদা বর্ন ধারণ করেছে। এবার ১৩ বিঘা জমিতে ধানের চাষ করেছিলাম তার মধ্যে ৭ বিঘা জমির ধান ঝলসে গেছে।কুশলী গ্রামের কৃষানী মিনি বেগম বলেন, গরম বাতাসে আমার সাড়ে ৪ বিঘা জমির হাইব্রিড ধান গরম বাতাসে ঝলসে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। পরিবার পরিজন নিয়ে কিভাবে বাঁচব তা নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় আছি। এখন সরকার থেকে যদি সাহায্য সহযোগিতা পাই তাহলে পূনারায় চাষাবাদ শুরু করতে পারবো।টুঙ্গিপাড়া কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জামাল উদ্দিন বলেন, অনাকাঙ্খিত গরম, শুষ্ক ও বৃষ্টিবিহীন ঝড়ো হাওয়ায় প্রায় তিন হাজার হেক্টর জমির ধান নষ্ট হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের অবশিষ্ট জমিতে পানি ধরে রাখা ও সালফার স্প্রে করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তাতে জমির ধান ভালো থাকলে কৃষকেরা ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবে।
এছাড়া ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। কৃষি অফিসের কর্মকর্তা ও মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা প্রতিনিয়ত কৃষকদের দিকে নজর রাখছে ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করছে বলেও জানান ঐ কর্মকর্তা।

Posted on

গোবিন্দগঞ্জে অগ্নিকান্ডে ২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালমাল পুড়ে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি


শামীম রেজা ডাফরুল,গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরশহরের একটি রেডিমেট কাপড়ের দোকানসহ ২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিকান্ডে মালামাল পুড়ে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ পৌরশহরের উপজেলা পরিষদ রোডে অবস্থিত এস এল লেডিস অ্যান্ড জেন্টস কালেকশন নামক রেডিমেট কাপড়ের দোকানসহ ২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বুধবার রাত ১০টার দিকে হঠাৎ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়লে পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেরও অনেক মালামাল আগুনে পুড়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
অগ্নিকান্ডের এসএল লেডিস অ্যান্ড জেন্টস কালেকশন রেডিমেট কাপড়ের দোকানের সম্পূর্ণ মালামাল পুড়ে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দোকানের মালিক হাসিবুল জানান। এছাড়া পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেরও কিছু মালামাল আগুনে পুড়ে ক্ষতি হয়েছে জানা গেছে।
গোবিন্দগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ইনচার্জ মতিয়ার রহমান জানান, বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে এ অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে।

Posted on

গোবিন্দগঞ্জে সড়ক দূঘর্টনায় অটো ভ্যানচালক নিহত

শামীম রেজা ডাফরুল,গোবিন্দগঞ্জ(গাইবান্ধা)প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে বৃহস্পতিবার সকালে ফাঁসিতলা বন্দরে গ্রামীন ব্যাংক সংলগ্ন এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় সুজন (২৪) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। সে কামারদহ ইউনিয়নের চাঁদপাড়া গ্রামের এনছের আলীর ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে অটো ভ্যান-মিনি পিকআপ ও ট্রাকের ত্রিমুখী সংঘর্ষ হয়। এতে অটো-ভ্যানটি দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলেই অটো ভ্যান চালক সুজন নিহত হয়।
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে গোবিন্দগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উদ্ধার তৎপরতা চালায় এবং হাইওয়ে পুলিশ দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাক ও পিকআপকে আটক করেছে বলে জানা গেছে।

Posted on

নারী হ্যান্ডবলের সোনা আনসারের


নিজস্ব প্রতিবেদক :
বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমস নারী হ্যান্ডবলে সোনা জিতেছে বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী জাতীয় হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ আনসার ৪২-২০ গোলে বাংলাদেশ পুলিশকে হারিয়ে সোনা নিশ্চিত করে।
প্রথমার্ধ শেষে ২২-৭ গোলে এগিয়ে ছিলো আনসার। দলটির খাদিজা আক্তার সর্বোচ্চ ৮ গোল করেন। পুলিশের ২০ গোলের মধ্যে রুবিনা বেগমে একাই করেন ১০ গোল।

এ ইভেন্টে ব্রোঞ্জ জিতেছে নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সংস্থা। একই ভেন্যুতে স্থান নির্ধারণী ম্যাচে নওগাঁ ২৬-১৬ গোলে জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে হারিয়েছে।

ম্যাচ শেষে বিজয়ীদের পদক তুলে দেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ) সহসভাপতি শেখ বশির আহমেদ মামুন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশন সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় শেখ বশির আহমেদ মামুন বলেন, ‘আল্লাহর অশেষ রহমতে আমাদের প্রতিটি ডিসিপ্লিন খুব সুন্দর ভাবে শেষ হচ্ছে। কোন দুর্ঘটনা ছাড়া এতো বড় আয়োজন, এতো বড় যজ্ঞ আল্লাহর বিশেষ রহমত ছাড়া শেষ করা সম্ভব হতো না।’

তিনি আরোও বলেন, ‘বিওএ এক্সিকিউটিভ কমিটির সদস্যরা প্রতিটি ভেন্যুতে গিয়ে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন। আমাদের মেডিকেল কমিটির সদস্যরা স্বাস্থ্য বিধি মেনে গেমস আয়োজনে সহযোগিতা করছেন। এজন্য আমি তাদের ধন্যবাদ দিতে চাই। আমি মিডিয়াকেও ধন্যবাদ দিতে চাই। প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেকট্রনিক্স মিডিয়া গেমসকে সারা দেশে ছড়িয়ে দিয়েছে।’

করোনা পরিস্থিতিতে ক্রীড়াবিদদের বাড়ী পাঠানোর বিষয়ে শেখ বশির আহমেদ মামুন বলেন, ‘আমরা ফেডারেশনগুলোর সঙ্গে কথা বলে গাড়ী করে খেলোয়াড়দের বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছি। যে গাড়ীতে খেলোয়াড়দের পাঠানো হয়েছে সে গাড়ীর নাম্বার আমরা পুলিশ কন্ট্রোল বোর্ডে দিয়ে দিয়েছি। লকডাউনের মধ্যেও কারো বাড়ি ফিরতে কোন সমস্যা হবে না। ১০ এপ্রিল ছোট পরিসরে সমাপনী অনুষ্ঠান হবে। যেখানে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থাকবেন গেমস আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান।’