গোপালগঞ্জে রোকেয়া সাজার দায়ে শ্রীঘরে ময়না


দুলাল বিশ্বাস,গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি :
গোপালগঞ্জে বাদী ও আসামী পক্ষের পরস্পরের যোগসাজসে রোকেয়া বেগম সেঁজে ভুয়া সাক্ষ্য দিতে এসে ফেঁসে গেলেন ময়না বেগম (৪৫) নামে এক নারী।
বৃহস্পতিবার দুপুরে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিজিএম) আদালতে এ ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় বাদী (এজাহারকারী) , আসামী এবং স্বাক্ষি ওই নারীসহ ৯ জনকে আটক করে ্তাদের বিরুদ্ধে পৃথক মামলা দিয়ে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত।
সিজিএম আদালতের নাজির মো. মনিরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার মুকসুদপুর থানার জিআর ৫১/২০১৯ নং মামলার সাক্ষ্য গ্রহনের দিন ছিল। উক্ত মামলার নিযুক্ত রাষ্ট্র পক্ষের অতিরিক্ত সরকারি কৌসূলী ( এপিপি) এম, এ, হাই আদালতে এজাহারকারীসহ ৪ জন সাক্ষীর হাজিরা দাখিল করেন। সাক্ষীদের মধ্যে বাদীর পক্ষের সাক্ষী হিসেবে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানার ফতেপট্টি গ্রামের মো. সূর্য শেখের স্ত্রী রোকেয়া বেগম সেঁজে হলাফনামা পাঠ করে আদালতে জবানবন্দি দেওয়ার জন্য কাঠগড়ায় দাড়ান ময়না বেগম নামে ওই নারী।
জবানবন্দি গ্রহনকালে আদালতের বিচারক ও গোপালগঞ্জের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ সাহাদাত হোসেন ভ’ইয়া সাক্ষীর স্বামীর নাম একাধিকবার জিজ্ঞাসা করলে সে নাম বলতে ইতঃস্তত করতে থাকেন।এসময় আদালতে উপস্থিত এজাহারকারী(বাদী) উক্ত সাক্ষীর নাম রোকেয়া বলে জানায়। এছাড়া তিনি যখন স্বামীর নাম বলতে পারছিলেন না তখন ডকে দাড়ানো আসামীদের মধ্য থেকে একজন পুলিশ রিপোর্টে উল্লেখিত তার স্বামীর নাম সূর্য শেখ বলে দেন। বিষয়টিতে আদালতের সন্দেহের সৃষ্টি হলে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায় তিনি তার প্রকৃত নাম ময়না বেগম বলে আদালতের কাছে স্বীকার করেন। এছাড়া তিনি ফরিদপুরের ভাঙ্গা থানার হাসামদিয়া গ্রামের আকরাম সিকদারের স্ত্রী বলেও আদালতকে তার পরিচয় জানান।
এদিকে, এ ঘটনায় চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত(সিজিএম)-র বেঞ্চ সহকারী মোঃ জামিল আহমেদ বাদী হয়ে পরস্পর যোগসাজসে প্রতারনার আশ্রয় নিয়ে সাক্ষীর কাঠগড়ায় দাড়িয়ে রোকেয়া বেগমের স্থলে ময়না বেগমকে দিয়ে মিথ্যা পরিচয়ে শপথ পাঠ করে সাক্ষ্য দেওয়ার অভিযোগে ওই নারীসহ বাদী ও আসামী পক্ষের ৯ জনকে আসামী করে একটি পৃথক মামলা দায়ের করেছেন।
অদালতের বিচারক তাদেরকে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন।
গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত সরকারী কৌশুলী (এপিপি) এম এ হাই বলেন, গতকাল (বৃহস্পতিবার)এই মামলায় স্বাক্ষির জন্য দিন ধার্য ছিল। মামলায় স্বাক্ষি দেয়ার কথাছিলো রোকেয়া বেগম নামের এক নারীর। আদালতের বিচারক ও গোপালগঞ্জের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ সাহাদাত হোসেন ভূইয়া স্বাক্ষির কাঠগড়ায় দাড়িঁয়ে থাকা ওই নারীর স্বামীর নাম জানতে চাই সে বলতে ইত:স্তত বোধ করলে পরে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ওই নারী স্বিকার করে তারনাম ময়না বেগম। তিনি ফরিদপুরে ভাঙ্গা থানার হাসামদি গ্রামের সূর্য শেখের স্ত্রী।