বরগুনায় শ্বাশুরীকে মারধরের অভিযোগে কারাগারে থাকা পুত্রবধু অনিতার জামিন মঞ্জুর

এম আর অভি,বরগুনা প্রতিনিধি:
শ্বাশুরীকে শারিরীক নির্যাতনের করা মামলায় কারাগারে থাকা পুত্রবধু অনিতা জামান জামিন পেয়েছে। গতকাল চীফজুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেস্ট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক তাকে শর্তসাপেক্ষে জামিন দিয়েছেন। আলোয়ার আইনজীবি গোলাম সাজ্জাদ মিশকাত ( ১৯ জুলাই ) সোমবার বিকালে প্রতিবেদকে জানান ১ মাসের মধ্যে আপোষ-মিশাংশার শর্তে ১শ টাকার স্টাম্পে মুচলেকার মাধ্যমে অনিতাকে জামিন দিয়েছে আদালত।
সদর উপজেলার আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের খেজুরতলা গ্রামের মৃত-মুজাফফর হাওলাদারের বিধবা স্ত্রী আলোয়া বেগম (৬৫) কে মারধর করে স্বামীর ভিটা ও তার মেয়ে মনিরা আক্তারকে বাবার বাড়ি-ঘর থেকে জোর-পূর্বক বের করে দেয় তারই পুত্র মনিরুজ্জামান জুয়েল (৩৫), পুত্রবধু অনিতা জামান (৩০) ও নাতী আলিফ। এমন অভিযোগ এনে এ ঘটনায় ৩০ জুন বরগুনা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেস্ট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন শ্বাশুরী আলোয়া বেগম ।
শ্বশুরীকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়া সেই চাঞ্চল্যকর মামলার আসামী পুত্রবধু অনিতা জামান এর বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করে আদালত। ১৫ জুলাই বৃহস্পতিবার সে আদালতে হাজির হলে বিজ্ঞ আদালত তাকে কারাগারে পাঠায়।
এছাড়াও এর পুর্বে মা আলোয়া বেগমকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ায় তিনি আদালতে আরও একটি মামলা দায়ের করেন। সে মামলায় বিজ্ঞ আদালত আলোয়ার ২ ছেলে মনিরুজ্জামান জুয়েল (৩৫) ও কামরুজ্জামান সোয়াইব (৩০) এর বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করেন। তারা পলাতক রয়েছে । তাদের এখনো পুলিশ আটক করতে পারেনি।
তবে বরগুনা থানার অফিসার ইনচার্জ কে এম তারিকুল ইসলাম প্রতিবেদকে জানান , কোন ওয়ারেন্ট থানায় এখনো আসেনি ,আর কেউ আটকও হয়নি।
উল্লেখ্য বছর খানে পূর্বে স্বামী মুজাফফর হাওলাদার মারা যায়, কন্যা মনিরা কে নিয়ে মৃত স্বামীর ঘরে খেয়ে না খেয়ে জীবনযাপন করে আলোয়া । মনিরুজ্জামান জুয়েল (৩৫) ও কামরুজ্জামান সোয়াইব পুত্রদ্বয় তাদের পিতা মারা যাওয়ার পর থেকে তাদের মা আলোয়া ও বোন মনিরার কোন ভরণ পোষণ দেয় না। উল্টো বাবার মৃত্যু পরে মা-বোনের ফরায়েজ অনুসারে সম্পত্তির প্রাপ্ত অংশটুকু বন্ধক রেখে সব টাকা পয়সা ঐ দুই ছেলে নিয়ে যায় । এর প্রতিবাদ করায় গত ১২ জুন সকালে মা ও বোনকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে ছেলে মনিরুজ্জামান জুয়েল (৩৫) ও কামরুজ্জামান সোয়াইব (৩০) ও বড় ছেলে স্ত্রী অনিতা (৩০)। মাকে খুনের উদ্দোশ্যে মারধর করে বাড়ি-ঘর থেকে এক কাপড়ে তাড়িয়ে দেয় ,সে প্রতিবেশি দেবরের ঘরে আশ্রয় নেয় , পুত্র ও পুত্র বধুর হুমকিতে সেখানে তাদের আশ্রয় হয়নি এবং প্রায় ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের মা ও বোনের ঘরে থাকা মালামাল ও স্বর্নালংকার চুরি করে নেয় এমন অভিযোগ এনে ভুক্তভোগী মা আলোয়া বেগম (৬৫ ) আদালতের শরনাপন্ন হন এবং পুত্র ও পুত্রবধরু নামে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন।