নতুন বছরে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে মেনে চলুন ১৫ নিয়ম

জয়যাত্রা ডেস্ক :
সুন্দরী, রূপবতী, মায়াবতী, তুলনাহীনা- মেয়েরা এসব বিশেষণ শুনতে পছন্দ করেন। সেজন্য প্রয়োজন সুস্থ শরীর, সুঠাম ফিগার আর সুস্থ ত্বক। বিশেষ করে নতুন বছরে নিজেকে নতুন রূপে নিজেকে উপস্থাপন করতে কার না ইচ্ছে করে। অবশ্য এর জন্য বেশি পরিশ্রমের দরকার নেই। শুধু কয়েকটি নিয়ম মানলেই হবে।

নিখুঁত, মসৃণ এবং কোমল ত্বকের জন্য এক্সফোলিয়েশন করতে হবে। লেবুর রস, গোলাপ জল ও বেসন মিশিয়ে ঘরোয়া স্ক্রাব ব্যবহার করা যায়।
রোদে বের হওয়ার সময় রোদ চশমা ও সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে ভুলবেন না। ধূমপান সুন্দর ত্বকের শত্রু। তাই ধূমপান এড়িয়ে চলাই ভালো।
ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে বেশি করে ময়েশ্চারাইজিং লোশন ও সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে।
ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার, যেমন স্প্রাউট, লেবু, কমলালেবু, আমলকী খেতে হবে। প্রয়োজনে ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট নিতে হবে।

মুখে সাবান নয়, ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে হবে। এড়ানোর কোনো যুক্তি নেই। আমাদের ত্বকে সারাদিন জমে থাকা দাগ এবং ময়লা থেকে পরিত্রাণ পেতে হবে এবং তার জন্য মুখ ধোয়া আবশ্যক, ঠিক যেমন চুলের জন্য শ্যাম্পু করা। আর মুখে পানি ছিটিয়ে ধুলে ভালো।
মুখের ফোলাভাব কমাতে ঠাণ্ডা কম্প্রেস প্রয়োগ করতে হবে এবং মদ্যপান কম করতে হবে। যতক্ষণ না ত্বক তার আসল অবস্থায় ফিরে আসে কম্প্রেস করতে হবে।
ধনে পাতা, পুদিনা এবং কারিপাতার পেস্ট কিন্তু ভালো ডিটক্স ফর্মুলা এবং এটি ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।
এক টুকরো পাকা পেঁপে শরীরের ট্যানড জায়গায় ১৫ মিনিট ঘষলে ট্যানিং দূর হয়। মুখ ধুয়ে টি ট্রি অয়েল দেওয়া ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা যায়।
পুরুষদের আফটার শেভ লোশন ব্যবহার করা এড়িয়ে চলতে হবে। পরিবর্তে অ্যালোভেরা জেল বা ক্যালামাইন লোশন ব্যবহার করা যায়।
ত্বকে বলিরেখা দেখা দিলে বোটক্স, ফিলার ইত্যাদি পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করতে পারেন।
ব্রণ এবং তৈলাক্ত ত্বকের জন্য গোলাপের পাপড়ি, পুদিনা পাতা এবং নিম পাতা সিদ্ধ করে ছেঁকে ফ্রিজে রেখে কিউব করে নিতে হবে। যা পরে মুখে ঘষা যাবে।
কয়েক সেকেন্ডের জন্য মুখে ২০ জায়গায় চিমটি কাটতে হবে। এটি রক্ত সরবরাহ বাড়াতে সাহায্য করে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।
মেকআপ নিয়ে রাতে ঘুমাতে গেলে চলবে না। মেকআপ ত্বকের ছিদ্র বন্ধ করে দেয়। এতে ত্বকের মারাত্বক ক্ষতি হয়।
একটি স্প্রে বোতলে পানি ভর্তি করে কয়েক ফোঁটা ক্যামোমাইল তেল দিয়ে ফেস মিস্ট তৈরি করে নেওয়া যায়। এটি ত্বক আর্দ্র রাখে।
মানসিক চাপ কাটাতে হবে। কারণ মুখের ওপর স্ট্রেসের প্রভাব দেখা যায়। আর সব সময় হাসতে চেষ্টা করতে হবে।