যে কোন প্রাণী পাচারই পরিবেশর জন্য ক্ষতিকর বরগুনায় তক্ষকসহ আটক ৩ পাচারকারী কারাগারে

এম আর অভি , বরগুনা প্রতিনিধি
বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার নাচনাপাড়া ইউনিয়নের জ্ঞানপাড়া গ্রামের বাঁশতলা নতুন বাজার এলাকা থেকে একটি তক্ষকসহ রিয়াজুল ইসলাম (৪২)ও ইউনুচ হাং (৫৮) নামের দুই পাচারকারীকে পাথরঘাটা থানা পুলিশ এবং শাহ-আলম নামে আরও একজনকে র‌্যাব আটক করে। পরে তাদের আদালতের মাধ্যমে করাগারে পাঠায়।
বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারী) পাথরঘাটা থানার তদন্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত ) সঞ্জয় মজুমদার প্রতিবেদকে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তক্ষকসহ দুজনকে প্রথমে আটক করা হয়। পরে র‌্যাব শাহ-আলম নামে আরো একজনকে আটক করে । শাহ আলমের বাড়ী পাথরঘাটার তালুক চরদুয়ানী। আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
তিনি আরও জানান এর পূর্বে মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) রাতে নাচনাপাড়া ইউনিয়নের জ্ঞানপাড়া গ্রামের বাঁশতলা নতুন বাজার এলাকা থেকে তক্ষকসহ দুজনকে আটক করা হয়। এছাড়াও শাহ-আলম নামে আরো একজনকে তক্ষকসহ র‌্যাব আটক করে। এর নেপথ্যে আসলে কার এমন প্রশ্নে ওসি বলেন ,যারা ধরা পড়ছে তারাই কাজ করছে। আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে। পাথরাঘাটায় পাখি শিকার হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নে তদন্ত ওসি বলেন, এখন পাথরাঘাটায় কোন পাখি শিকার হচ্ছে না ।
উদ্ধারকৃত তক্ষক ৩ টির দাম ২০ লাখ থেকে কোটি টাকা হবে ,তদন্ত ওসি বলেন, তক্ষকটি গুলো বনে অবমুক্ত করার জন্য বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
আটকৃত রিয়াজুল ইসলাম (৪২) বরিশালের উজিরপুর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের আব্দুল আজিজের ছেলে অপরদিকে ইউনুচ হাং (৫৮) বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার রায়হানপুর ইউনিয়নের গোলবুনিয়া গ্রামের আব্দুল গফুর হাওলাদারের ছেলে এবং শাহ আলমের বাড়ী পাথরঘাটার তালুক চরদুয়ানী।
জেলা প্রাণি-সম্পদ কর্মকর্তা ডা.মো মনিরুল ইসলাম প্রতিবেদকে বলেন, তক্ষক প্রাণীটি অবশ্যই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূতিকা পালন করে। এ প্রাণীটি পোকা-মাকর খেয়ে জীবন ধারন করে। যে কোন প্রাণী পাচারই পরিবেশের জন্য খুবই ক্ষতিকর।