বাংলাদেশ কি করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউয়ের মুখোমুখি

নিজস্ব প্রতিবেদক :বাংলাদেশে সপ্তাহ দু’য়েক আগেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছিলো মাত্র দুই শতাংশের নিচে। কিন্তু এরপরই তা ঊর্ধ্বমুখী হতে হতে ১২ শতাংশে উঠে গেছে।

এরইমধ্যে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১১ দফা বিধিনিষেধ। প্রশ্ন উঠছে, বাংলাদেশ কি করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউয়ের মুখোমুখি?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন বিশ্ব থেকে করোনাভাইরাস পুরোপুরি নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যাবে। তবে বাংলাদেশে তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানার কারণ হিসেবে সম্ভাব্য কয়েকটি বিষয় চিহ্নিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

টিকা ও হার্ড ইমিউনিটি
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকা দেয়াকে সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি বলে মনে করা হয়। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ, মোট জনসংখ্যার বিপরীতে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার হারে অনেক পিছিয়ে আছে।

সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র আফগানিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ), বিশ্বব্যাংক গোষ্ঠী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ও বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রধানদের নিয়ে গঠিত কোভিড-১৯ টাস্কফোর্সের এক ওয়েবসাইটে এসব তথ্য জানা যায়।

ওয়েবসাইটে বলা হচ্ছে, বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার ২.৬১% মানুষকে দুই ডোজ টিকা দেয়া সম্ভব হয়েছে। অন্যদিকে জনসংখ্যার অনুপাতে এক ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে ৪.১৮% মানুষকে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে এ পর্যন্ত প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন প্রায় দুই কোটি ১৯ লাখ মানুষ। এর মধ্যে সম্পূর্ণ দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন, এক কোটি ৪৪ লাখ মানুষ। কিন্তু করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এই হার একেবারেই যথেষ্ট নয়, বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

এ ব্যাপারে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মোস্তাক আহমেদ বলেন, `যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের কয়েকটি দেশ তাদের বেশিরভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে পেরেছে। এ কারণে সংক্রমণ ঠেকানো না গেলেও গুরুতর `

বাংলাদেশে সপ্তাহ দু’য়েক আগেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছিলো মাত্র দুই শতাংশের নিচে। কিন্তু এরপরই তা ঊর্ধ্বমুখী হতে হতে ১২ শতাংশে উঠে গেছে।

এরইমধ্যে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১১ দফা বিধিনিষেধ। প্রশ্ন উঠছে, বাংলাদেশ কি করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউয়ের মুখোমুখি?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন বিশ্ব থেকে করোনাভাইরাস পুরোপুরি নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যাবে। তবে বাংলাদেশে তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানার কারণ হিসেবে সম্ভাব্য কয়েকটি বিষয় চিহ্নিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

টিকা ও হার্ড ইমিউনিটি
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকা দেয়াকে সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি বলে মনে করা হয়। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ, মোট জনসংখ্যার বিপরীতে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার হারে অনেক পিছিয়ে আছে।

সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র আফগানিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ), বিশ্বব্যাংক গোষ্ঠী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ও বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রধানদের নিয়ে গঠিত কোভিড-১৯ টাস্কফোর্সের এক ওয়েবসাইটে এসব তথ্য জানা যায়।

ওয়েবসাইটে বলা হচ্ছে, বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার ২.৬১% মানুষকে দুই ডোজ টিকা দেয়া সম্ভব হয়েছে। অন্যদিকে জনসংখ্যার অনুপাতে এক ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে ৪.১৮% মানুষকে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে এ পর্যন্ত প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন প্রায় দুই কোটি ১৯ লাখ মানুষ। এর মধ্যে সম্পূর্ণ দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন, এক কোটি ৪৪ লাখ মানুষ। কিন্তু করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এই হার একেবারেই যথেষ্ট নয়, বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

এ ব্যাপারে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মোস্তাক আহমেদ বলেন, `যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের কয়েকটি দেশ তাদের বেশিরভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে পেরেছে। এ কারণে সংক্রমণ ঠেকানো না গেলেও গুরুতর অসুস্থতা ও মৃত্যু ঠেকানো যাচ্ছে। ভাইরাস দুর্বল হয়ে পড়ছে। এজন্য টিকা দেয়া অবশ্যই দরকার।’

সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ যদি টিকা সংগ্রহে তৎপরতা বাড়াতে না পারে এবং বয়স নির্বিশেষে মোট জনগোষ্ঠীর একটি বড় অংশকে টিকার আওতায় আনতে না পারে তাহলে তৃতীয় ঢেউ বড় ধরনের ঝুঁকি নিয়ে আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বেনজির আহমেদ।

কিন্তু বাংলাদেশে এখনও জনসংখ্যার তুলনায় টিকার মজুদ ও সরবরাহ সন্তোষজনক নয় বলে তিনি জানিয়েছেন। চলতি বছরের শুরুতে বাংলাদেশ সরকার ভারত থেকে করোনাভাইরাসের অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা আমদানি শুরু করলেও প্রথম চালানের পর সেটা বাধার মুখে। ফলে ভাইরাস নিয়ন্ত্রণের প্রক্রিয়া বিঘ্নিত হয়৷

চুক্তি অনুযায়ী জুনের মধ্যে যেখানে অন্তত তিন কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার কথা, সেখানে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত সব টিকা বুঝে পায়নি।